সর্বশেষ আপডেট : ৫ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাজনগরে মনু প্রকল্পে পাম্প মেশিন স্থাপনে ৪০ কোটি টাকার ঘাপলা!

Rajnagar monu prokolpo news daily sylhetরাজনগর প্রতিনিধি::
ওপেন টেন্ডারের পরিবর্তে ডাইরেক্ট প্রকিউরমেন্ট পদ্ধতিতে মৌলভীবাজারস্থ মনু প্রকল্পের কাশিমপুর পাম্প হাউসের ৮টি পাম্প মেশিন ও প্যানেল বোর্ড পুনঃস্থাপনে সরকারি বরাদ্দের ৪০ কোটি টাকা ঘাপলা করার অভিযোগ উঠেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মনু প্রকল্পের অভ্যন্তরীণ ওয়াটার লেবেল নিয়ন্ত্রণকল্পে ১৯৭৭ সালে রাজনগর উপজেলার কাশিমপুরে স্থাপিত হয় একটি পাম্পিং প্লান্ট। সে সময় প্লান্টের ৮টি মেশিন ও প্যানেল বোর্ড স্থাপন করেছিল জার্মানভিত্তিক কেএসবি এবং সিমেন্স কোম্পানী। বর্তমানে এগুলোর কর্মক্ষমতা ১৫/২০ পার্সেন্টে নেমে এসেছে। কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে মেশিনগুলো ওভারহোলিং করা হলেও এর সক্ষমতা পূর্ণ মাত্রায় ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়নি। ফলে পাউবো কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে নতুন পাম্প মেশিন স্থাপনের প্রস্তাব তোলা হয়। এ সংক্রান্ত প্রকল্প অনুমোদনও হয় একনেকে। সে অনুযায়ী নতুন মেশিন ও প্যানেল বোর্ড স্থাপনের জন্য ৮৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।

সূত্র জানায়, পাউবো কর্তৃপক্ষ আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান ছাড়াই ডাইরেক্ট প্রকিউরমেন্ট পদ্ধতিতে কেএসবি কোম্পানীর কাছ থেকে ৬৯ কোটি ৮২ লাখ টাকা ব্যয় দেখিয়ে ৮টি পাম্প মেশিন এবং ৮ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয় দেখিয়ে প্যানেল বোর্ড স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মৌলভীবাজারস্থ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মেকানিক্যাল সেকশন এ বিষয়ে ডিপিপি প্রস্তুত করে। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। এমনকি পানি উন্নয়ন বোর্ডের অনেক কর্মকর্তার মধ্যেও নানা গুঞ্জন শুরু হয়েছে। অভিযোগ অনুযায়ী, পাম্প মেশিন ও প্যানেল বোর্ড সরবরাহের ক্ষেত্রে কেএসবি’র দেশীয় এজেন্ট ‘সিগমা’ মুখ্য ভূমিকা পালন করছে। সিগমা’র চাপাচাপিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কেএসবি’র প্রতি রহস্যজনকভাবে দুর্বলতা দেখাচ্ছেন। এর ফলে বরাদ্দকৃত অর্থের ৪০ কোটি টাকা বাড়তি ব্যয় হচ্ছে।

সূত্রমতে, কেএসবি’র চাইতে অধিক ক্ষমতাসম্পন্ন আটটি পাম্প মেশিন ৩০ কোটি টাকা এবং প্যানেল বোর্ড ৫ কোটি টাকার বিনিময়ে সরবরাহে আগ্রহ ব্যক্ত করে জার্মানভিত্তিক ‘উইলো’, আমেরিকাভিত্তিক ‘রোরপ্রামকা’ এবং অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক ‘এন্ডরিজ’ কোম্পানী। কিন্তু এ তিন কোম্পানীর কম টাকার কোটেশনে পাউবো কর্তৃপক্ষ গুরুত্ব দেননি। এ রহস্যকে ভিত্তি করেই ঘাপলার অভিযোগ উঠেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: