সর্বশেষ আপডেট : ৩৬ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নতুন প্রজন্মের কাছে স্কুল মানেই একটি দালান

ss-550x385নিউজ ডেস্ক :  না পাড়া-মহাল্লায় না স্কুলে কোথাও আমাদের সন্তানদের জন্য খেলার মাঠ নেই। দূরন্ত শৈশবটাই যেনো হারিয়ে যাচ্ছে তাদের। নগরায়ন আর আধুনিকতার অজুহাতে বিলীন হয়েছে খেলার মাঠ। আর তাই মোবাইল ফোন আর কম্পিউটারের ছোট্ট মনিটরেই খেলার দিকে ঝুঁকছেন শিশু-কিশোররা। এতে শরীরে ও মনে চরম দুর্বল আর আতœবিশ্বাসহীন হয়ে পড়ছে আমাদের প্রজন্ম।

যেনো খাঁচায় বন্দি পোষা পাখি । খেলার জায়গা বলতে এক চিলতে বারান্দা। নগরীতে শিশুর খেলা মাঠ এখন ট্যাব,মোবাইল কিংবা কম্পিউটারের ছোট্ট মনিটর ।

তারা বিশ্বকাপ ফুটবল খেলছে কয়েক ইঞ্চি মনিটরে। ফলে স্বাস্থ্যবান হওয়ার বদলে দুর্বল হচ্ছে দেহ-মনে। অলস আর আতœবিশ্বাসহীন হয়ে উঠছে বড়দের মনোযোগের অভাবে।

এক সময় পাড়া মহল্লায় শিশুরা মেতে থাকত নানান খেলাধুলায় । স্কুলের টিফিন বা ছুটির ঘণ্টা বাজতেই মাঠে নেমেই হইহুল। হাতে বানানো কাগজের  উড়োজাহাজের দুনিয়া দেখার দিন গুলো এখন শুধুই ইতিহাস। অলিতে গুলিতে স্কুলের ঠাসাঠাসি। ক্লাশে বসেই টিফিন । আর ছুটির পর শুধু এক খাঁচা থেকে আরকে কাচাঁয় যাওয়া।

শিশুদের খেলাধুলা না করার এই নেতিবাচক প্রভাব হিসেবে অনেক শিশুই  অনেক কম কথা বলে এবং অনেক দেরিতে কথা বলে বলে জানান,  শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. আলী জ্যেকব আরসালান।

এর নেতিবাচক প্রভাবে শিশুরা মিশুক হয় না বা তাদের মধ্যে নেতৃত্বের গুণাবলিও থাকে না বলেও জানান, কথা সাহিত্যিক আনিসুল হক।

মনোরোগ বিশেষজ্ঞ মোহিত কামাল বলেন, আমাদের যারা নীতি নির্ধারক তারা আমাদের বাচ্চাদের খেলার মাঠ দিতে পারছে না এটা তাদের ব্যর্থতা।

প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত রাজধানীতে ১১ হাজার ৩শত ২৮ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে

খেলার মাঠ আছে ৫শত ৬৭ টিতে । বাকি ১০ হাজার ৭শত ৬১টি বিদ্যালয় কেবলই দালান।

আপন কাঁধে দোষ নিয়েই শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, স্কুল যেমন পড়া লিখার জায়গা তেমনি তা খেলাও জায়গা। কিন্তু এখন ঢাকার শহরে দেখি কি? স্কুল মানে একটি দালান। আর সেই ¯ু‹লেই আমরা আমাদের ছেলে মেয়েদেরকে আগ্রহ নিয়ে পাঠাচ্ছি। দোষ আমাদেরই।  আমরা কেনো চাপ দিচ্ছি না যে স্কুলে  খেলার মাঠ না থাকলে আমারা (বাচ্চারা) স্কুলে যাবো না বা আমরা (অভিভাবকরা ) স্কুলে পাঠাবো না।

ঢাকা সিটিকর্পোরেশনের ২৫ খেলার মাঠের মধ্যে অস্তিত্ব নেই ১৫ টির। বাকি দশটি রিকসা, ভ্যান বা ট্রাকের স্ট্যান্ডের দখলে ।  জেলা শহরগুলোর অবস্থাও এর কাছাকাছি।

শরীর মনের আতœবিশ্বাসি ও স্বাভাবিক বিকাশে চাঙ্গা প্রজন্ম গড়তে হলে এখন ভাবতে হবে নতুন করে। অন্যথায় ধীরে ধীরে বাসাবাড়িগুলো হাসপাতালে। পরিণত হতে বেশি দূর নয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: