সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৩৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

খালেদার ইফতারে ক্ষিপ্ত ফখরুল

2016_06_12_02_26_55_w0PWMvqQWP7Q3jgrcnj689n5Izo4pX_originalনিউজ ডেস্ক :: ধারণক্ষমতার চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ লোকের উপস্থিতিতে চরম বিশৃঙ্খলা আর হট্টগোল পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে শেষ হলো রাজনৈতিক নেতাদের সম্মানে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ইফতার মাহফিল।

শনিবার সন্ধ্যায় বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশনের সিটির নবরাত্রি হলে এ ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

জানা যায়, বসুন্ধরা কনভেনশনের নবরাত্রি হলের আসন সংখ্যা ১ হাজার ৬০০। আর বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে এর চেয়ে অনেক বেশি রাজনীতিবিদকে। ফলে ধারণক্ষমতার চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ লোকের উপস্থিতিতে ইফতার মাহফিলে ভয়াবহ বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।

সরেজমিন দেখা যায়, বিকেল সোয়া ৪টার দিকে নবরাত্রি হলের ভেতরে প্রবেশের জন্য গেটের সামনে এসে রাজনীতিবিদরা অপেক্ষা করতে থাকেন। দূর-দূরান্ত থেকে আগত রোজাদাররা আমন্ত্রণপত্র প্রদর্শন করলেও অজ্ঞাত কারণে তখন তাদেরকে ভেতরে প্রবেশে বাধা দেয়া হয়। এ সময় অনেকের সঙ্গে খারাপ আচরণও করা হয় বলে অভিযোগ করেন তারা।

পরবর্তীতে সেখানে রোজাদারদের সংখ্যা যখন বেড়ে যায়, তখন অনেকটা জোরপূর্বক তাদের একটি অংশ হলের ভেতরে ঢুকে পড়েন। তাদের পেছন পেছন অন্য রোজাদাররাও তখন একসঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করেন। এ সময় আমন্ত্রণপত্র ছাড়াই অনেকে ভেতরে ঢুকে যান। একপর্যায়ে হলের গেটে রাখা আর্চওয়ে মেশিন সরিয়ে নেয়া হয়।

এদিকে, অনেকটা যুদ্ধ করে রাজনীতিবিদরা ভেতরে প্রবেশ করতে সক্ষম হলেও তাদের মুখোমুখি হতে হয় আরেক বিপত্তির। আমন্ত্রণপত্র হাতে নিয়ে টেবিলে টেবিলে ঘুরেও অনেকে আসনে বসতে ব্যর্থ হন। আসন না পাওয়ায় এ সময় অনেককে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায়।

এখানেই শেষ নয়, আসন না পাওয়ায় ইফতারের আগ পর্যন্ত তাদেরকে দাঁড়িয়েই থাকতে হয়েছে। এদের অনেকে দাঁড়িয়ে অন্যের সঙ্গে ইফতারে অংশগ্রহণ করলেও তাদের জন্য ছিল না খাওয়ার পানির ব্যবস্থা। ফলে আসন গ্রহণকারী অন্য রাজনীতিবিদের জন্য রাখা বোতলজাত পানি শেয়ার করে খেতে হয় তাদের। এ ঘটনায় চরম ক্ষুব্ধ তারা।

একপর্যায়ে ইফতার মাহফিলের অনিয়ন্ত্রিত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে পদস্থ দায়িত্বশীলদের ওপর ক্ষিপ্ত হতে দেখা যায়। টেবিলে টেবিলে গিয়ে নেতাদের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলেও তাতে পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হয়নি। পরে নিরুপায় হয়ে মূল স্টেজে চলে যান তিনি।

এদিকে, ২০ দলীয় জোটের একজন কেন্দ্রীয় নেতা ইফতার মাহফিলের হলের ভেতরে প্রবেশ করে আসন না পেয়ে ক্ষুব্ধ হন। পরে জোটের অন্য নেতাদের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি করে বসেন তিনি। ইফতারিও ভাগাভাগি করে খেতে হয় তাকে। শুধু তিনি একা নন, জোটের আরো অনেক নেতাকেই আজ এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়েছে।

ইফতার মাহফিলে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও এইচএম এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির কোনো প্রতিনিধি আসেননি।

২০ দলীয় জোটের বাইরে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার বীরপ্রতীক, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম দেলোয়ার এবং এইচএম এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা এরশাদ ইফতার মাহফিলে অংশ নেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: