সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মৌলভীবাজারের সাত উপজেলায় মৌসুমী ফলের বাজার জমজমাট: প্রতিদিন এক কোটি টাকার কাঁঠাল বিক্রি

katal daily sylhetজালাল আহমদ::
মৌলভীবাজারের সাত উপজেলায় মৌসুমী ফল আনারস ও কাঁঠালের বাজার বেশ জমজমাট। বিশেষ করে জেলার শ্রীমঙ্গল ও বড়লেখায় মৌসুমী ফলের পাইকারি বাজার চোখে পড়ার মতো। পাহাড় ও বাগান পরিবেষ্টিত বড়লেখাসহ অন্যান্য উপজেলার অতীতেও দেশ-বিদেশে পরিচিত ছিল। শ্রীমঙ্গলের আনারসের জুড়ী মেলা ভার গোটা বাংলাদেশের কোথাও। দেশের বিভিন্ন পাহাড়ি এলাকায় বিভিন্ন প্রজাতির আনারস জন্মালেও স্বাদ ঘ্রাণের দিক থেকে শ্রীমঙ্গলের আনারস অদ্বিতীয় তা বলাবাহুল্য।

জেলার শ্রীমঙ্গলে আনারসের চাষ দীর্ঘ প্রাচীন। তবে বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদ শুরু হয় ৭০ এর দশক থেকে। শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন পাহাড়ি দুর্গম এলাকার টিলায় আনারসের সারি সারি বাগান। এসব বাগান থেকে মৌসুম ছাড়াও সারা বছর আনারস উৎপাদিত হয়ে থাকে। তবে ভর মওসুমে আনারসের উৎপাদন হয় বেশি, সাইজও হয় ভালো। আনারস ছাড়া কাঁঠালের অসংখ্য বাগান করা হয়েছে। ব্যাপকহারে কাঁঠাল ফলন হওয়ায় মৌসুমের শুরুতে হাজার হাজার কাঁঠাল বাজারে আসছে। বাগান মালিকরা জানিয়েছেন, অন্যান্য বছরের চেয়ে এবার রেকর্ড পরিমাণ উৎপাদন হয়েছে। ফলে মধু মাসের মৌসুমী ফল কাঁঠাল, আনারস ও আমের বাজার জমজমাট এখন। তবে শিলাবৃষ্টির কারণে কিছুটা হোচট খেতে হয়েছে ব্যবসায়ীদের।

জ্যৈষ্ঠ মাসের শুরু থেকেই জেলার সবক’টি উপজেলার বাজারে হাজার হাজার কাঁঠাল ও আনারস আসতে শুরু হয়। তবে এখন আরও বৃদ্ধি পেয়েছে কাঁঠালের বাজার। বিভিন্ন বাজার থেকে প্রতিদিন, ট্রাক, পিক-আপ আর ভ্যানভর্তি করে কাঁঠাল ব্যবসায়ীরা সিলেটসহ বিভিন্ন অঞ্চলে নিয়ে যাচ্ছেন। জেলার সাত উপজেলার শতাধিক বড় হাট-বাজারে প্রতিদিন প্রায় ১ কোটি টাকার কাঁঠাল পাইকারিসহ খুচরা বিক্রি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তবে বিক্রির পরিমাণ এবার শ্রীমঙ্গলে বেশি। পরে রয়েছে বড়লেখা। ভোর থেকে অর্ধরাত পর্যন্ত কাঁঠালের খুচরা বাজার শ্রীমঙ্গল শহরের পুরান বাজার এলাকায় খদ্দের থাকেন প্রচুর। শ্রীমঙ্গলের পুরান বাজার, নতুনবাজার এলাকার আড়ত ছাড়াও খোলা বাজারে বিপুল পরিমাণ কাঁঠাল কেনাবেচা হচ্ছে। আনারস আর চায়ের রাজধানী হলেও শ্রীমঙ্গলের উৎপাদিত কাঁঠাল মৌলভীবাজার, শেরপুর, মোকামবাজার, সরকার বাজার, তাজপুর, বিয়ানীবাজার, সিলেট, চট্টগ্রাম, বগুড়া, ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় ট্রাকভর্তি করে পাইকারি ক্রেতারা নিয়ে যাচ্ছেন।

কাঁঠালের বাজার ঘুরে ও ক্রেতা-বিক্রেতাদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, শ্রীমঙ্গলের বাগানগুলোতে কাঁঠালের ভালো উৎপাদন হয়েছে। প্রতি বছরের মতো মধু মাসের ফল কাঁঠাল ক্রয় করতে বিভিন্ন এলাক থেকে প্রতিদিন ক্রেতারা এখানে আসছেন।

জেলার শ্রীমঙ্গল, কুলাউড়া, বড়লেখাসহ বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সকাল ৬টা থেকে পাহাড়ি এলাকার কাঁঠালের বাগান থেকে জীপ, ট্রাক, পিকআপ, ঠেলা ও সাইকেলে করে কাঁঠাল নিয়ে আসেন বিক্রেতারা। বাগান মালিকরাও নিজ উদ্যোগে কাঁঠাল প্রতিদিন বাজারে নিয়ে আসছেন। বর্তমানে বেশ সরগরম কাঁঠালের বাজার। কেননা এ মওসুমে কাঁঠালসহ অন্যান্য ফল বেশিরভাগই দেওয়া হয় সিলেটী রীতি অনুযায়ী মেয়ের বাড়িতে। স্থানীয় বাগান মালিকদের মতে, বড়লেখার অর্ধ শতাধিক কাঁঠালের বাগানে পর্যাপ্ত ফল এসেছে। বলা যায়, রেকর্ড পরিমাণ কাঁঠাল উৎপাদন হয়েছে বড়লেখায়। বর্তমান কাঁঠালের বাজারে ২০ টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত দামের কাঁঠাল বিক্রি করতে দেখা গেছে। সাধারণ কাঁঠালের পাইকারি বাজার ভোর ৬টা থেকে দুপুরের মধ্যে শেষ হলেও খুচরা বাজার থাকছে অর্ধরাত পর্যন্ত। খুচরা বাজারেও ক্রেতাদের ভীড় লক্ষ্যণীয়। জেলার বিভিন্ন উপজেলায় কাঁঠালের মৌসুম পাওয়া যাবে আরও ৩ মাস পর্যন্ত। তবে পর্যাপ্ত ফল কেনাবেচার এখনই উপযুক্ত সময় বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার জেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: শাহজাহান জানান, এবার জেলায় রেকর্ড পরিমাণ কাঁঠাল উৎপাদন হয়েছে। বাগান মালিক ও ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে বিক্রেতারাও বেশ খুশি। ভালো দামও পাচ্ছেন তারা। অন্যান্য ফলেরও ফলন ভালো হয়েছে বলে তিনি জানান।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: