সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গোলাপগঞ্জে গণপিটুনিতে আহত গরু চুরের পক্ষ নিয়ে বোনের মামলা

daily sylhet mamlaগোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি:
গোলাপগঞ্জে গণপিটুনিতে আহত গরু চুরের পক্ষ নিয়ে বোন কর্তৃক দায়েরকৃত মামলায় নিরীহ লোকজন আসামী করায় সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ৬মাস পূর্বের একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে মাননীয় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিট্রেট আদালতে গরু চুরের পক্ষ থেকে অভিযোগ দায়ের করা হলে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় গত ৭ জুন তা রেকর্ডভূক্ত হয়।

এলাকার নিরীহ লোকজনকে দায়েরকৃত মামলায় আসামী করায় বিষয়টি এলাকায় ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। চুরি, ডাকাতি, সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে গোলাপগঞ্জ থানা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে অর্ধশত মামলা রয়েছে। একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিরীহ লোকজনকে আসামী করে মামলা দায়েরের বিষয়টি তিনটি গ্রামের হাজারও মানুষের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে ঐ গরু চুরের আস্তানা গুড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন। নিরীহ লোকজনকে মিথ্যা মামলা থেকে রেহাই দেয়ার জন্য গোলাপগঞ্জের সর্বস্তরের লোকজনের পক্ষ থেকে জোরালো দাবি জানানো হয়েছে।

গোলাপগঞ্জ থানার পুলিশের তালিকায় সন্ত্রাসী হিসাবে পৌর এলাকার ৪নং ওয়ার্ডের খালপারের বাসিন্দা মৃত আজিজুল হকের পুত্র হেলালের নাম রয়েছে। বিগত একযুগে তার বিরুদ্ধে কমপক্ষে ২০টি মামলা হয়েছে। মামলা হলে কিছুদিন জেল খেটে বের হয়ে আবার শুরু করে নানা অপতৎপরতা। তার জ্বালায় এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। এলাকার শত শত মানুষ লিখিত ভাবে প্রশাসনের কাছে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করলে প্রশাসন হেলালের আস্তানা গুড়িয়ে দেয়। তার অপকর্মের প্রতিবাদ করায় সন্ধ্যা রাতে বাড়ির ফেরার পথে দলবল নিয়ে খুন করতে চেয়েছিল পৌর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডারকে। এ মামলায়ও কিছুদিন জেল খাটলেও মুক্তিযোদ্ধা হানিফ আলী ও তার পরিবারের আতংক কোন ভাবেই যেন কাটছে না।

প্রাপ্ত সংবাদে জানা যায়, প্রায় অর্ধশত বছর পূর্বে হেলালের বাবা আজিজুল হক নদী ভাঙনের শিকার হয়ে ভোলা থেকে গোলাপগঞ্জে এসেছিলেন। স্থানীয় লোকজন তাদেরকে স্বরসতী গ্রামের পূর্বপ্রান্তে মৌলভী খালের মুখে বসবাসের সুযোগ করে দিলে পরবর্তীতে আজিজুল হকের ৫ পুত্র ও ৩ কন্যা গোলাপগঞ্জ তথা সিলেটের বিভিন্ন স্থানের অপরাধীদেরকে সংঘবদ্ধ করে একের পর এক অপকর্ম করতে থাকে। বিভিন্ন জেলার শ্রমজীবি মানুষজনকে ভাল চাকুরী দেয়ার লোভ দেখিয়ে এনে নির্যাতন চালিয়ে টাকা পয়সা না দিয়েই বিদায় করে দিত। তাদের মধ্যে সবচেয়ে দুর্ধর্ষ হচ্ছে হেলাল। মধ্য বয়সী হেলাল ইতিমধ্যে বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগে বার বার জেল খেটেছে। তার বিরুদ্ধে শুধু গেলাপগঞ্জ থানাতেই বিগত একযুগে ২০টি মামলা হয়েছে বলে জানা যায়।

এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে গত বছরের ২২ আগষ্ট গণধোলাই দিলে হেলাল গুরুতর আহত হয়। এ ব্যাপারে গরু চুর হেলালের বোন রেনু বেগম বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের ২য় আদালত সিলেটের বরাবরে গত ২২ ফেব্রুয়ারী অভিযোগ দায়ের করলে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় মামলাটি রেকর্ডভূক্ত হয়। গরু চুরের পক্ষ নিয়ে মামলা দায়ের করে গোলাপগঞ্জের নিরীহ লোকজনকে হয়রানী করায় সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এর প্রতিবাদে বৃহত্তর স্বরসতীসহ গোলাপগঞ্জ পৌর এলাকার বিভিন্ন গ্রামের মানুষের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ জানাতে কর্মসূচী দেয়া হবে বলে জানা যায়।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: