সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৭ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আসামি না হয়েও আড়াই বছর জেলে, অবশেষে মুক্ত সিলেটের নূরুল

jail_10563ডেইলি সিলেট ডেস্ক:
অবশেষে জামিন পেলেন সিলেটের চাঞ্চল্যকর দিনার হত্যা মামলায় পুলিশের ভুলের কারণে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ছোট ভাই নুনু মৌলভীরস্থলে জেল থাকা বড় ভাই নূরুল ইসলাম (নূরু)। বিচারপতি আবুবকর সিদ্দিকী ও মোস্তফা জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন।

আদালতে নুরুল ইসলামের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোহাম্মদ আফতাব উদ্দিন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, সিলেটে থানা পুলিশের ভুলের কারণে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ছোট ভাই নুনু মৌলভীরস্থলে জেল খাটছেন বড় ভাই নূরুল ইসলাম (৬০)। প্রায় আড়াই বছর তিনি রয়েছেন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন।

নুরুল ইসলামের ভোটার আইডি কার্ড, চেয়ারম্যান প্রত্যায়নপত্রসহ বিভিন্ন আনুষাঙ্গিক কাগজপত্র আদালতে দাখিল করা হয়। পরে শুনানি শেষে আদালত নুরুল ইসলামকে ৬ মাসের জামিন দেন।

জানাযায়, ১৯৯২ সালে সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার দেবাগ ইউনিয়নের মেওয়া গ্রামের আব্দুস সালাম ওরফে সেলাইয়া মিয়ার পুত্র মাদ্রাসা ছাত্র নজরুল ইসলাম ওরফে দিনাকে খুন করা হয়। তার গলাকাটা লাশ গ্রামের খালের পাড় থেকে উদ্ধার করা হয়।

দিনার বাবা বিয়ানীবাজার থানায় মামলা করেন। মামলায় আসামিরা অজ্ঞাত। ওই সময় বিয়ানীবাজার থানার ওসি ছিলেন চিরজ্যোতি চাকমা। লাশ উদ্ধারের দিনই পুলিশ মেওয়া পূর্ব জামে মসজিদ থেকে নজরুল ইসলাম ওরফে নুনু মৌলভীকে গ্রেফতার করে।

দিনা ছিল মেওয়া মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। নুনু মৌলভীর কাছে প্রাইভেট পড়ত। কিন্তু নুনু মৌলভী আটকের পর এলাকার লোকজনের অনুরোধে আটকের পরদিন পুলিশ থানা থেকে তাকে ছেড়ে দেয়। ঘটনার বেশ কিছুদিন পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আবু তাহের নুনু মৌলভীসহ সাতজনকে আসামি করে আদালতে চার্জসিট দাখিল করেন।

১৯৯৯ সালে সিলেটের দায়রা আদালত নুনু মৌলভী, আব্দুস জলিল, আব্দুর রহমান ওরফে সাদ, আব্দুস শহীদ, এনাম উদ্দিন ,খলিলুর ও নিজাম উদ্দিনকে যাবজ্জীবন সাজা দেয়। এদের মধ্যে নুনু মৌলভী ও এনাম উদ্দিন পলাতক রয়েছেন। একটি সূত্র দাবি করেছে, এনাম বর্তমানে সৌদি আরবে অবস্থান করছে। আর নুনু মৌলভী নাম পরিবর্তন করে বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করছেন এবং আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় তিনি চারটি বিয়েও করেছেন। মেওয়া গ্রামের মোকলেছ আলীর সাত ছেলের মধ্যে নূরুল ইসলাম সবার বড় আর নুনু মৌলভী দ্বিতীয়।

নূরুল ইসলামের বড়ছেলে সারোয়ার জাহান সজীব বলেন, তার বাবা নূরুল ইসলাম ১৯৮৮ সালে সৌদি আরব যান। দেশে ফেরেন ১৯৯৮ সালে। দেশের ফেরার পর তিনি কৃষিকাজ করতেন। আর ১৯৯৯ সালে হত্যা মামলায় তার চাচা নুনু মৌলভীর সাজা হয়। পুলিশ গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে ১৭ বার তার চাচাকে নুনু মৌলভীকে খুঁজতে তাদের বাড়িতে আসে। এ নিয়ে তার বাবা নূরুল ইসলামও বেশ কয়েকবার পুলিশের নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছেন।

কিন্তু ২০১৪ সালের ৮ মার্চ পুলিশ নূরুল ইসলামকে দিনা হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠায়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: