সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাত্রমৈত্রীর কর্মীকে ছাত্রলীগের মারধর প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল

f2f80bef-c362-4d5b-a199-cd9c429bda33রাবি প্রতিনিধি:
সিট দখলকে কেন্দ্র করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার ছাত্রমৈত্রীর কর্মীকে মারধর করেছে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হবিবুর রহমান হলে মারধরের এই ঘটনা ঘটে। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে বুধবার ১১ টার দিকে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে প্রগতিশীল জোটের নেতা-কর্মীরা।

আহতরা হলেন বাংলা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মুনীর হোসেন ও পপুলেশন সায়েন্স ফাইনাল ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী মিলন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে নেওয়া হয়। এখন তারা স্বাভাবিক সুস্থ অবস্থায় আছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হল সূত্র জানা যায়, প্রশাসনের অনুমতিক্রমে শহীদ হবিবুর রহমান হলের ২৫৩ নম্বর কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী ও বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রমৈত্রীর দপ্তর সম্পাদক দেলওয়ার হোসেন সবুজ ৩১৩ নম্বর কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী সারওয়ার হোসেনের সঙ্গে সিট বদল করার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু সারওয়ারের রুমমেট ও ছাত্রলীগ কর্মী মনজেল সেই সিটে অন্য একজনকে তুলতে চাচ্ছিলেন।

সন্ধ্যায় সারওয়ার সিট বদল করে সবুজের কক্ষে চলে আসে। কিন্তু সবুজ যখন তার সংগঠনের কয়েকজনের সহযোগিতায় জিনিসপত্র নিয়ে সারওয়ারের কক্ষে যায়, তখন সারওয়ারের রুমমেট মনজেল কক্ষে তালা লাগিয়ে দেয়। এ সময় মনজেলের সঙ্গে বাকবিত-ার এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। পরে ছাত্রলীগের কয়েকজন মিলে মুনীর হোসেনকে ধাওয়া দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। এসময় হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মামুন ও সাধারণ সম্পাদক বায়েজিদ উপস্থিত ছিলেন।

বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি প্রদীপ মার্ডি বলেন, ‘ওই সিটে ছাত্রলীগের কাউকে উঠানোর জন্য ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা আমাদের ওপর হামলা চালায়।’
হল ছাত্রলীগের সভাপতি মামুন বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘এ ঘটনায় ছাত্রলীগের কেউ জড়িত নেই। ব্যক্তিগত দ্বন্দের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে।’
বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদুল ইসলাম রাঞ্জু বলেন, ‘হলে সিট বদল নিয়ে মনজেলের সহযোগী ও সবুজের সহযোগীদের মধ্যে হতাহাতি হয়েছে।’ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের জড়িত থাকার বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।

হবিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ এস এম এক্রাম উল্যাহ এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এদিকে হামলীকারী ছাত্রলীগের বিচার দাবী করে বুধবার দুপুর ১২টার দিকে পরিবহন মার্কেটের সামনে বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর টেন্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে প্রগতিশীল জোটের নেতা-কর্মীরা। তারা ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কেন্দ্রীয় গ্রন্থগারের সমনে সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তব্য দেন বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায়। তিনি হামলাকারী ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের বিচার দাবী করেন। তিনি আরও দাবি করেন, আজ প্রশাসনের প্রশয়েই সরকার দলীয় ছাত্রসংগঠনের নেতা কর্মীরা অন্যান্য ছাত্র সংগঠনের কর্মীদের উপর হামলা করছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: