সর্বশেষ আপডেট : ২০ মিনিট ১৯ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ব্লু-বার্ডে বর্ধিত বেতন প্রত্যাহারের দাবিতে স্মারকলিপি

Smroklipiব্লু-বার্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজে দীর্ঘদিন বেতন আটকে রেখে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ছাড়া বর্ধিত বেতন বহাল রাখার প্রতিবাদে সোমবার সকালে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকবৃন্দ সিলেটের জেলা প্রশাসক ও ব্লু-বার্ড স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি মোঃ জয়নাল আবেদীন এর হাতে স্মারকলিপি প্রদান করেন।
স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ৩নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবজাদ হোসেন আমজদ, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক বিজিত চৌধুরী, অভিভাবকদের পক্ষে শাখাওয়াত আলী শাহী, সাবেক কাউন্সিলর আব্দুর রকিব বাবলু, কুমার গণেশ পাল, মোঃ বদরুল হোসেন, নিখিল দে, সফিকুল ইসলাম, বিপুল তালুকদার, অসিত পাল, শংকর বিশ^াস, এডভোকেট বিদ্যুৎ কুমার শি-পিনাকী, এডভোকেট সুশীল বরন সরকার, নিরাপদ দাশ পিংকু প্রমুখ।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে- ব্লু-বার্ড স্কুল এন্ড কলেজে প্রি-নার্সারী হতে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার ৫ শত ছাত্র/ছাত্রী লেখাপড়া করছে। প্রতিটি ক্লাশে ৪ থেকে ৫টি শাখা রয়েছে। প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ২০১৬ সালে অযৌক্তিকভাবে সেশন ফি ও জানুয়ারী মাসের বেতন বর্ধিত করেন। যা ছাত্র/ছাত্রীদের অভিভাবক অনেক কষ্টে প্রদান করেছেন। স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে, প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদ/ অধ্যক্ষ মহোদয় ছাত্র/ছাত্রীদের অভিভাবকদের কোন প্রকার অবগত না করিয়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়া অযৌক্তিকভাবে চলতি বছরের জানুয়ারী মাস থেকে প্রি-নাসারী ভর্তি ফি- ৯ হাজার ৭ শত ৭৫ টাকা এবং মাসিক বেতন বাড়িয়ে ১ হাজার ৫ শত টাকা করে; কিন্তু গত বছরে প্রি-নার্সারীর মাসিক বেতন ছিল ৮ শত টাকা। তদ্রুপ প্রতিটি শ্রেণিতে অযৌক্তিকভাবে বেতন বৃদ্ধি করে জানুয়ারী ২০১৬ সালে নোটিশ প্রদান করেন।

উক্ত নোটিশের প্রেক্ষিতে অভিভাবকরা মাসিক বেতনসহ ভর্তি ফি প্রদান পূর্বক প্রাইম ব্যাংকে সুবিদবাজার শাখায় জমা দিয়ে ছাত্র/ছাত্রী ভর্তি কার্যক্রম শেষ করেন। ইতিমধ্যে সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক অনুযায়ী ফেব্রুয়ারি মাস থেকে মাসিক বেতন নেয়া বন্ধ হয়ে যায়। তখন অভিভাবকরা অধ্যক্ষের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, শিক্ষা মন্ত্রণালয় হতে নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত বেতন নেয়া যাবে না। এমতাবস্থায় অভিভাবকগণ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না হওয়া পর্যন্ত বিগত বছরের ন্যায় শিক্ষার্থীদের বেতন গ্রহণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে জেলা প্রশাসকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়।

স্মারকলিপিতে আরো উল্লেখ করা হয়েছে- আগামী জুলাই মাসে অর্ধবার্ষিকী পরীক্ষাকে ইস্যু করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোন না আসলেও শ্রেণি শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ক্লাসে বেতন দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন ও বেতন পরিশোধ করে বেতন রসিদ শ্রেণি শিক্ষকের নিকট জমা দেয়া জন্য এবং বলেন বেতন না পরিশোধ না করলে অর্ধ বার্ষিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে দেয়া হবে না। যা শিষ্টাচার বহির্ভূত এবং কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মনে ভীতি সঞ্চার করছে। এছাড়াও অত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ হোসনে আরা যোগদান করার পর হতে অত্র প্রতিষ্ঠানটি ছাত্র/ছাত্রী ও অভিভাবকদের সাথে দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে এবং তার অযৌক্তি সিদ্ধান্তের কারণে গভর্নিং বডির অনেক সদস্যগণের সাথে বার বার ঝগড়া-ঝাটিসহ দূরত্বের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়াও দীর্ঘ কয়েক বছর যাব অত্র প্রতিষ্ঠানের আয়-ব্যয়ের হিসাব অভিভাবকদের জানা নেই বা সরকারী কোন প্রতিষ্ঠান দ্বারা অডিটও করাননি। স্মারকলিপিতে অভিভাবকগণ পর্যালোচনাপূর্বক বিধি মোতাবেক গত বছরের ন্যায় বেতন গ্রহণ করার এবং গত ৩০ মের বেতনের নোটিশ স্থগিত পূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করার আহবান জানান। বিজ্ঞপ্তি

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: