সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ১০ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

অন্ধকারে বালাগঞ্জ উপজেলাবাসী

daily sylhet 0-153 copyশামীম আহমদ, বালাগঞ্জ:
বালাগঞ্জে বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারনে এক সপ্তাহ যাবৎ অন্ধকারে রয়েছেন উপজেলাবাসী। প্রতিদিন বিকেল চারটার পর থেকে ভোর রাত পর্যন্ত একটানা ৮ থেকে ১০ ঘন্টা লোডশেডিং করা হচ্ছে। আর টানা লোডশেডিংকালে দু’এক বার বিদ্যুৎ আসলেও তা আসা-যাওয়ার দোলাচলে আধা কিংবা এক ঘন্টার বেশী সময় স্থায়ী হচ্ছেনা। বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের ফলে পবিত্র রমজান মাসে মানুষের কি পরিমান ভোগান্তি হবে তার ইঙ্গিত এখনই পাওয়া যাচ্ছে। গ্রাহকরা অভিযোগ করে বলেন-দিনের অর্ধেক সময় বিদ্যুতের দেখা মিলেনা। বিকেল হওয়ার সাথে-সাথেই লোডশেডিং শুরু হয় ভোর রাত পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকে। ফলে-জনজীবনে অসহনীয় ভোগান্তি দেখা দিয়েছে।

সোমবার সন্ধায় এই রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত বিদ্যুৎ ব্যবস্থা স্বাভাবিক হয়নী। লোডশেডিংয়ের মাত্রা আরও কয়েক মাস অব্যাহত থাকবে বলে স্থানীয় বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা-কর্মচারীরা ইঙ্গিত দিয়েছেন। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকায় ব্যবসায়ীদের আর্থিক লোকসান গুনেতে হচ্ছে। বিপাকে পড়েছেন ব্যাংকসহ সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোও।

কয়েকজন গ্রাহক অভিযোগ করে বলেন-দিনের পর দিন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাখায় সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কাশিকাপন জোনাল অফিস ও বালাগঞ্জ এরিয়া অফিসের মোবাইল নাম্বারে কল দিলেও কল রিসিভ হয় না, মোবাইল বন্ধ থাকে এমনকী মোবাইল বিজি অপশনে (২৪ ঘন্টা নাম্বার বিজি) রাখারও অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি কয়েক দফা বিদ্যুতের মুল্য (ইউনিট) বৃদ্ধি করা হয়েছে। ফলে বিদ্যুতের এমন আসা-যাওয়ার খেলায় গ্রাহকদেরকে প্রতি মাসে বাড়তী বিল গুনতে হচ্ছে।

উপজেলা প্রশাসনের অফিস পাড়ায় সরকারী পদস্থ কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে সরকারী অনুষ্টান চলাকালীন সময়েও প্রায় বিদ্যুতের দেখা মিলেনা। বিদ্যুৎ সমস্যায় দৈনন্দিন কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটায় খোদ প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা ক্ষোব্ধ রয়েছেন। বালাগঞ্জের পাশ্ববর্তী উপজেলা ফেঞ্চুগঞ্জে সরকারী ও বেসরকারী কয়েকটি কেন্দ্রে উৎপাদিত বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রীডে যুক্ত হলেও বাতির নিচে অন্ধকারের মত রয়েছেন বালাগঞ্জ উপজেলাবাসী।

ফলে অসহনীয় লোডশেডিং আর বিদ্যুতের ভেলকিবাজিতে বালাগঞ্জবাসীর জনজীবন নাকাল হয়ে উটেছে। সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ১এর আওতাধীন বালাগঞ্জ এরিয়া অফিসের ইনচার্জ আব্দুল জব্বার লোডশেডিংয়ের কথা শিকার করে বলেন-আমিও লোডশেডিংয়ের বাইরে নই। রমজান মাসে লোডশেডিংয়ের মাত্রা কমানোর জন্য সঞ্চালন লাইনের নিকটবর্তী গাছের ডালপালা গুলো কেটে পরিস্কার করা হচ্ছে। তবে গাছের ডালপালার সাথে লোডশেডিংয়ের সম্পর্ক কি? জানতে চাওয়া হলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননী।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: