সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৫৩ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইরানকে ‘একঘরে’ করতে চায় সৌদি আরব

144178_1আন্তর্জাতিক ডেস্ক : শিয়াপ্রধান দেশ ইরানের সঙ্গে সুন্নিপ্রধান সৌদি আরবের বৈরিতা বহু পুরোনো। ইরানকে বাগে রাখতে এত দিন সৌদি আরব মধ্যপ্রাচ্যের মিত্রদের পাশাপাশি পশ্চিমাদের সহযোগিতা নিয়ে এসেছে। কিন্তু বাদশাহ সালমান সৌদি সরকারের দায়িত্ব নেওয়ার পর দ্রুত দৃশ্য বদলাতে শুরু করেছে।

সৌদি এখন মনে করছে, মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব বিস্তারের উচ্চাকাঙ্ক্ষা দমন করতে পশ্চিমা দেশগুলো এত দিন রিয়াদকে যে সহযোগিতা দিয়ে এসেছে, ধীরে ধীরে তা ফিকে হয়ে আসছে। তাই ইরানকে আন্তর্জাতিকভাবে ‘একঘরে’ করতে সৌদি আরব এখন শুধু পশ্চিমাদের আশায় বসে না থেকে আফ্রিকা, এশিয়া ও দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর দিকে হাত বাড়ানো শুরু করেছে।

লক্ষণীয় ব্যাপার হলো, ইরানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে বিভিন্ন রাষ্ট্রের ওপর চাপ দিতে আরব লিগসহ বিভিন্ন মুসলিম নেটওয়ার্ক ব্যবহার করছে সৌদি আরব। দেশটির নেতৃত্বে চলতি বছর ৩৪টি মুসলিম দেশের যে সন্ত্রাসবিরোধী ইসলামি জোট গঠিত হয়েছে, সেখানে ইরানকে যোগ দিতে আমন্ত্রণই জানানো হয়নি।

সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল-যুবায়ের সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘ইরান সন্ত্রাস সমর্থন করে নিজেই নিজেকে একঘরে করে ফেলেছে।’

চলতি বছরের জানুয়ারিতে সৌদি আরব শেখ নিমর আল নিমর নামের একজন প্রভাবশালী শিয়া নেতার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার পর ইরানে বিক্ষোভকারীরা সৌদি দূতাবাস ও কনস্যুলেট ভবনে আগুন ধরিয়ে দেয়। এর জের ধরে দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন হয়।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি ও তার ইরানি প্রতিপক্ষ মোহাম্মদ জাভাদ জারিফ

সৌদির পক্ষ নিয়ে আরব লিগ ইরানের তীব্র নিন্দা জানায়। সৌদি দূতাবাসে আগুন দেওয়ার নিন্দা জানিয়ে বাহরাইন, সুদান, জিবুতি ও মালদ্বীপ তেহরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে। কুয়েত ও কাতার সম্পর্ক ছিন্ন না করলেও তেহরান থেকে দূত প্রত্যাহার করে নেয়। সংযুক্ত আরব আমিরাত কূটনৈতিক সম্পর্ক অবনমন করে। ইরানের নিন্দা না করায় লেবাননে সামরিক সহায়তা দেওয়া বন্ধ করে সৌদি আরব।

এর ধারাবাহিকতায়ই সৌদি আরবের উদ্যোগে সন্ত্রাসবিরোধী ইসলামি জোট গঠন করা হয়। এর মাধ্যমে তেলসমৃদ্ধ দেশটি মধ্যপ্রাচ্যের বাইরে পাকিস্তান ও মালয়েশিয়ার মতো দেশকে ইরানবিরোধী অবস্থানে টানার চেষ্টা করছে।

কাতারের জর্জ টাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মেহরান কামরাভা ইরান ও সৌদি সম্পর্কের ক্ষেত্রে এটিকে একটি নতুন মাত্রা বলে মনে করেন।

সন্ত্রাসবিরোধী ইসলামি জোট গঠন করা হলেও এর কার্যকারিতা এখনো দৃশ্যমান নয়। তবে সৌদি কর্মকর্তারা বলেছেন, শিগগিরই রিয়াদে এই জোটের ‘সমন্বয় কেন্দ্র’ খোলা হবে এবং আসন্ন রমজানেই জোটভুক্ত দেশগুলোর প্রতিরক্ষামন্ত্রীদের সম্মেলন ডাকা হবে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাফিজ জাকারিয়া এই জোট গঠনের জন্য সৌদি আরবের প্রশংসা করেছেন এবং জোটে ভূমিকা রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।

সৌদি আরব এখন ভারতকেও ইরানবিরোধী অবস্থানে নেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে। সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সৌদি আরব সফর করেন। সেখানে সৌদির সঙ্গে ভারতের একটি চুক্তিও সম্পন্ন হয়। অবশ্য ইরানের সঙ্গেও একটি চুক্তি করেছেন মোদি।

গত বছরের গোড়ার দিকে বাদশাহ সালমান সৌদি আরবের ক্ষমতায় বসার কিছুদিনের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বশক্তিগুলোর সঙ্গে ইরান বহুল আলোচিত পরমাণু চুক্তি করে ফেলে। এর ফলে ইরানের ওপর আরোপিত দীর্ঘদিনের আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক অবরোধ প্রত্যাহার হয়েছে।

দেশটির ব্যবসা-বাণিজ্যের সুযোগ অনেকটাই ফিরে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যে বলেছে, মার্কিন ব্যাংকগুলো ইরানে বিনিয়োগ করতে পারবে। এ বিষয়টিই মূলত সৌদি আরবকে চিন্তায় ফেলে দিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

সূত্র: রয়টার্স

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: