সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ২৪ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

প্রতি রাতে ধর্ষণের যন্ত্রণা সহ্য করে আজ তিনি সফল!

imageঅনলাইন ডেস্ক:
বিয়ে হয়ে যায় মাত্র ১৫ বছর বয়সে। স্বামী মাতাল এবং অসম্ভব অত্যাচারী। প্রতি রাতে ধর্ষণ, গালিগালাজ ছিল তাঁর নিত্যসঙ্গী। সামান্য কারণেই চলত অকথ্য অত্যাচার। দেওয়ালে মাথা ঠুকে দিত স্বামী। তাঁর বয়স যখন মাত্র কুড়ি, কোলে তখন দু-দু’টি সন্তান। কিন্তু লড়াই ছাড়েননি তিনি। জীবনের সে দুঃস্বপ্নময় অধ্যায় এখন অতীত। তিনি এখন একজন সফল সিঙ্গল মাদার।

মুম্বইয়ের অভিজাত জায়গায় দামী ফ্ল্যাট রয়েছে তাঁর। তিনি গীতা ট্যান্ডন। বলিউডের ‘স্টান্ট উওম্যান’দের মধ্যে তিনি সফলতম।সম্প্রতি পরিচালক জয়না মুখোপাধ্যায়ের একটি তথ্যচিত্রে নিজের জীবনের সেই দুঃস্বপ্নময় অধ্যায়ের নানা কথা অকপটে জানিয়েছেন তিনি।

সেখানে তিনি বলেন, “স্বামীর অত্যাচারে প্রতি রাতে চিৎকার করতাম। কেউ বাঁচাতে আসেনি কখনও। রোজ রাতে স্বামীর হাতে ধর্ষণের যন্ত্রণা সহ্য করতে হত। তাঁকে ইন্ধন দিতেন আমার শাশুড়ি। এমনকী গ্যাস সিলিন্ডার দিয়ে পর্যন্ত মারা হয়েছিল আমাকে।” অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে একদিন দুই সন্তানকে নিয়ে ঘর ছাড়েন বছর কুড়ির গীতা। মাথার উপর ছাদ নেই। খাওয়ার সংস্থান নেই। দুই সন্তানকে দু’বেলা খাইয়ে পরিয়ে বাঁচিয়ে রাখতে কী না করেছেন তিনি। মেসে রান্না করেছেন। ভাঙড়া দলে নেচেছেন। শেষে তো এক প্রতারকের পাল্লায় পড়ে প্রায় যৌনকর্মী হয়ে যাচ্ছিলেন। প্রতারিত হতে হতে কোনওমতে বাঁচেন তিনি।

একদিন সুযোগ এলো তাঁর কাছে। বলিউডে ফিল্মের কাজ। তবে অভিনয় নয়। এ কাজে মূলত আমরা পুরুষদেরই করতে দেখতে অভ্যস্থ। করতে হবে নায়িকাদের বডি ডাবলিং-এর কাজ। অর্থাত্, নায়িকাদের অ্যাকশন সিকোয়েন্সে তাঁদের ডামির কাজ।

জীবনের ১৫ বছরের কঠিন লড়াইয়ের পর এখানেও সেই লড়াকু গীতা ধীরে ধীরে নজর কাড়লেন সবার। নায়িকাদের হয়ে ফিল্মের দৃশ্যে ঝড়ের গতিতে গাড়ি চালানো, গাড়ি চালিয়ে আগুনের বুক চিরে বেরিয়ে আসা, উচু থেকে লাফ দেওয়া, বাইক চালিয়ে হূ হূ করে ঝড়ের গতিতে এগিয়ে যাওয়া— এক কথায় তিনি ‘খতরোকে খিলাড়ি’।

বাস্তবের তিক্ত অভিজ্ঞতা, দিনের পর দিন স্বামীর অত্যাচার তাঁর মনকে লোহার মতো কঠিন করে তুলেছে। তাই এই ‘ফিল্মি ফাইট’ তাঁর কাছে নস্যি! জীবনের যে কোনও বাধাকে তাই অনায়াসে হারিয়ে এগিয়ে চলেছেন ‘ফাইটার গীতা’।

তথ্যচিত্রে তিনি জানিয়েছেন, একদিন তিনি দেশের প্রথম মহিলা অ্যাকশন ডিরেক্টর হিসেবে পরিচিত হতে চান। সেই সঙ্গে তাঁর বার্তা, “জীবনটা আসলে খুব সুন্দর। শুধু পালিয়ে যেও না। রুখে দাঁড়িয়ে লড়াই করো। দেখবে, জীবনও তোমাকে খালি হাতে ফেরাবে না। মূল্য দেবে জীবন-যুদ্ধের।”সূত্র: আনন্দবাজার।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: