সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ৩৫ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইরাক ও সিরিয়ায় না খেয়ে মরছে মানুষ

full_40012460_1464923662আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশের বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত মারেত আল-নুমান শহরে বিমান হামলার পর ছুটে পালাচ্ছে আতঙ্কিত লোকজন। ইরাক ও সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের (আইএস) নিয়ন্ত্রিত এলাকায় আটকা পড়েছে হাজার হাজার মানুষ। এদের মধ্যে বহুসংখ্যক নারী ও শিশু রয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, ভেতর থেকে আইএস যোদ্ধারা এসব সাধারণ মানুষকে আটকে রেখে মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করার চেষ্টা করছেন। আবার বাইরে সরকারি বাহিনী চারদিক থেকে ঘিরে থাকায় তাঁরা পালাতেও পারছেন না।

ইরাকের শুধু ফালুজা শহরেই আটকা পড়ে বিপন্ন ৫০ হাজার মানুষ। তাদের মধ্যে ২০ হাজারই শিশু। জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ হুঁশিয়ারি দিয়েছে, ফালুজায় আটকা পড়া ২০ হাজার শিশুকে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন করে আইএস তাদের পক্ষে যুদ্ধে অংশ নিতে বাধ্য করতে পারে।

মঙ্গলবার ফালুজায় সরকারি বাহিনী ‘চূড়ান্ত অভিযান’ শুরু করার পরপরই তারা আইএসের প্রতিরোধের মুখে পড়ে। ফালুজা অভিযানের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল আবদেলওয়াহাব আল সাদ্দি জানান, আইএসের হামলাটি তীব্র ছিল, তবে তা প্রতিহত করা হয়েছে।

এদিকে সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের উপকণ্ঠে অবরুদ্ধ এলাকা দারাইয়ার চার হাজার বাসিন্দা অনাহারে-অর্ধাহারে ভয়াবহ জীবন যাপন করছে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। আইএস ও সরকারি বাহিনীর কারণে সেখানে সড়কপথে ত্রাণ পাঠানো যাচ্ছে না। ২০১২ সাল থেকে অবরুদ্ধ দারাইয়ায় গত বুধবার প্রথম কিছু ত্রাণসামগ্রী গেছে।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স অবিলম্বে জাতিসংঘকে দারাইয়াসহ সিরিয়ার অবরুদ্ধ এলাকাগুলোতে বিমান থেকে খাবারসহ প্রয়োজনীয় ত্রাণসামগ্রী ফেলা শুরু করতে আহ্বান জানিয়েছে। তারা বলেছে, বিশ্বনেতারা ১ জুন থেকে সিরিয়ার অবরুদ্ধ এলাকায় ত্রাণ সরবরাহের ব্যাপারে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, সিরিয়া সরকার সেই সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে।

ইরাকে ইউনিসেফের প্রতিনিধি পিটার হকিন্স এক বিবৃতিতে বলেছেন, ইউনিসেফ যুদ্ধরত সব পক্ষকে ফালুজার ভেতরে আটকা পড়া শিশুদের রক্ষার আহ্বান জানিয়েছে। যারা স্বেচ্ছায় শহরটি ত্যাগ করতে চায়, তাদের বেরিয়ে যেতে দেওয়া এবং এরপর তাদের নিরাপদ আশ্রয়ের ব্যবস্থার করার কথাও বলেছে ইউনিসেফ।

বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি) বলেছে, ফালুজার বাসিন্দাদের খাবারের মজুত দ্রুত শেষ হয়ে আসছে। সেখানে খাবারের দাম বহুগুণ বেড়ে যাওয়ায় খুব কম পরিবারেরই তা কেনার ক্ষমতা রয়েছে। সেখানে এক কেজি চিনির দাম ৪০ ডলারের সমপরিমাণ পর্যন্ত উঠেছে। খাদ্যের অভাবে অনেকেই গবাদিপশুর খাবার খেতে বাধ্য হচ্ছে। অধিকাংশ বাড়িতেই বিদ্যুৎ নেই। শুধু যারা সরাসরি আইএসের হয়ে লড়াই করছে, তাদের ঘরে অল্প কিছু সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।

সিরিয়ার দারাইয়া এলাকায় কয়েক বছরের মধ্যে প্রথম ত্রাণবাহী একটি গাড়ি প্রবেশ করেছে গত বুধবার। তবে সেগুলো শুধু ওষুধ ছিল। কোনো খাবার ছিল না। এ ছাড়া আইএস নিয়ন্ত্রিত দারাইয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় মুয়াধামিয়া এলাকায় ডব্লিউএফপি সেদিনই কিছু খাবার সরবরাহ করতে পেরেছে।
সিরিয়ার অবরুদ্ধ এলাকাগুলোতে বিমান থেকে খাবারসহ প্রয়োজনীয় ত্রাণ ফেলা শুরু করার বিষয়ে আজ শুক্রবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে বৈঠক হওয়ার কথা।

জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী, সিরিয়ায় ৪৬ লাখ মানুষ এমন সব এলাকায় বাস করছে, যেখানে পৌঁছানো কষ্টসাধ্য। আর ছয় লাখ মানুষ বিভিন্ন অবরুদ্ধ এলাকায় আটকা পড়ে আছে।

এদিকে আইএস মোকাবিলায় মার্কিন মদদপুষ্ট কুর্দি ও আরব যোদ্ধারা সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেস (এসডিএফ) নামের নতুন একটি জোট গঠন করেছে। তুরস্কের সীমান্তসংলগ্ন উত্তর সিরিয়ার মানবিজি এলাকায় এই জোট ইতিমধ্যেই আইএস-বিরোধী অভিযান শুরু করেছে বলে সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: