সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সাক্ষী-আসামির গ্যাড়াকলে কিবরিয়া হত্যার বিচার

Kibria hotta news daily sylhetডেইলি সিলেট ডেস্ক:
সাক্ষ্য গ্রহণে সব প্রস্তুতি থাকলেও আজ সাক্ষী, কাল আসামি উপস্থিত না থাকার কারণে সাক্ষী-আসামির গ্যাড়াকলে দেশে-বিদেশে আলোচিত সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার বিচার কাজ।

চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও নানা কারণে এ ঘটনার তদন্ত ও বিচার কাজ বিলম্বিত হচ্ছে। এ অবস্থায় কবে শেষ হবে তা নিশ্চিত করতে পারছে না কেউ।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, টানা ৯ দফা মামলার অভিযোগ (চার্জ) গঠনের তারিখ পেছানোর পর গত বছরের ১৩ সেপ্টেম্বর সব আসামির উপস্থিতিতে চাঞ্চল্যকর এই মামলার বিচার কাজ শুরু হয়েছিল। এরপর গত ৩০ সেপ্টেম্বর মামলার বাদী হবিগঞ্জ-২ আসনের সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মজিদ খান। ওই দিন সাক্ষ্যগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হয়। আর এ পর্যন্ত প্রায় ২০ দফা সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ পেছানো হয়েছে।

মামলার মোট ১৭১ জন সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত মাত্র ২০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। এখনো ১৫১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ বাকি রয়েছে। সর্বশেষ বুধবারও সকল আসামি উপস্থিত না থাকায় সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি। সিলেট বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মকবুল আহসান সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ বৃহস্পতিবার নির্ধারণ করেন।

সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি কিশোর কুমার কর জানান, বুধবার মামলার সকল আসামি আদালতে হাজির হয়নি। ঢাকা জেলে থাকা এই মামলার আট আসামি হাজির না থাকায় বিচারক সাক্ষ্যগ্রহণ না করে বৃহস্পতিবার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেন।

এক প্রশ্নের জবাবে পিপি বলেন, কবে এ মামলার বিচার কাজ শেষ হবে সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে এই মামলার ক্ষেত্রে ১৩৫ দিনের মধ্যে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার শেষ করার যে আইনি বাধ্য বাধকতা আছে, সেটা এই মামলার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয় বলেও জানান তিনি। কিবরিয়া হত্যা মামলার ৩২ আসামির মধ্যে আটজন জামিনে, ১৪ জন কারাগারে ও ১০ জন পলাতক রয়েছেন।

সূত্র জানায়, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে কার্যক্রম শুরুর ১৩৫ কার্যদিবসের মধ্যে মামলার কাজ শেষ করার বিধান রয়েছে। কিন্তু ১৩৫ কার্যদিবস পেরিয়ে গেলেও শেষ হয়নি কিবরিয়া হত্যা মামলার বিচার কাজ। নির্ধারিত ১৩৫ দিনের মধ্যে কিবরিয়া হত্যা মামলার বিচার শেষ না হওয়ায় গত জানুয়ারি মাসের প্রথম দিকে আলোচিত এই হত্যা মামলার বিচার সম্পন্নের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে সময় সীমা বাড়ানোর আবেদন করেন সিলেট বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি কিশোর কুমার কর।

আবেদনের প্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই মামলার ক্ষেত্রে ১৩৫ দিনের মধ্যে দ্রুত বিচার শেষ করার যে আইনি বাধ্যবাধকতা আছে সেটা এই মামলার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয় মত দিয়ে বিচার কাজ চালানোর অনুমোদন দেয়া হয়।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বৈদ্যের বাজারে জনসভায় গ্রেনেড হামলায় আওয়ামী লীগ নেতা শাহ এএমএস কিবরিয়াসহ পাঁচজন নিহত হন। ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকারের সময় অর্থমন্ত্রী ছিলেন কিবরিয়া। এ ঘটনায় জেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সাংসদ আবদুল মজিদ খান বাদী হয়ে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুইটি মামলা দায়ের করেন।

তিন দফা তদন্তের পর এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সিলেট অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার মেহেরুন নেছা পারুল ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর আরিফুল, গউছ এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীসহ ১১ জনের নাম যোগ করে মোট ৩২ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেন। এরপর হবিগঞ্জের বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের তৎকালীন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও হবিগঞ্জের পৌর মেয়র জি কে গউস।

হবিগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ মো. আতাবুল­াহ মামলাটি বিচারের জন্য গত ১১ জুন সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠিয়ে দেন।

এদিকে, গত ৫ জানুয়ারি সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়েরকৃত বিস্ফোরক মামলার অভিযোগপত্র আমলে নিয়েছেন হবিগঞ্জ বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১ আদালত।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: