সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ১১ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গ্যাং রেপের পর টুইটারে ছবি প্রকাশ, তিরিশ জনেরও বেশি ধর্ষক গ্রেপ্তার

120019Gang-Rapeআন্তর্জাতিক ডেস্ক::গ্যাং রেপের ঘটনা নিয়ে এখন উত্তাল ব্রাজিল। এক টিনএজারকে গ্যাং রেপের ছবি ও ভিডিও প্রকাশ পেয়েছে টুইটারে। যারা ধর্ষণে অংশ নেয় তারাই ছবি ও ভিডিও প্রকাশ করেছে। পুলিশ এদের ধরতে অভিযানে নেমেছে। ইতিমধ্যে সন্দেহভাজন ৩০ জনকে আটক করা হয়েছে।

টুইটারে ১৬ বছর বয়সী এক কিশোরীকে ধষর্ণের সময় তার অচেতন অবস্থার ছবি ও ভিডিও ছাড়া হয়।

পুলিশ জানায়, রিও ডি জেনিরোর পশ্চিমে জাকারেপাগুয়ায় গত ২১ মে তারিখে ওই কিরোশীরে অস্ত্রের মুখে ধর্ষণ করা হয়। মেয়েটি সেখানে তার প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিল।

এক সাক্ষীর বয়ান মিডিয়ায় প্রকাশ করা হয়। তাতে বলা হয়, মেয়েটি ওইদিন তার প্রেমিকের বাসায় দুপুর ১টার দিকে পৌঁছে। প্রেমিকের সঙ্গে একাই ছিলেন তিনি। এরপর এক সময় জ্ঞান হারান। এরপর আর কিছু মনে নেই। পরদিন সকালে জ্ঞান ফেরার পর দেখেন, তিনি নগ্ন অবস্থায় পড়ে রয়েছেন। এক দল সশস্ত্র মানুষ তাকে ঘিরে রয়েছে।

পরে ওই কিশোরী ব্রাজিলের ও গ্লোবো পত্রিকাকে জানায়, যখন জ্ঞান ফিরে তখন দেখি ওই রুমে ৩৩ জন মানুষ আমাকে ঘিরে রয়েছে। পরে ধর্ষকরা ছবি ও ফুটেজ প্রকাশের পর মেয়েট বুঝতে পারেন, এগুলো তারই ছবি।

ধর্ষণের ভিডিও ব্রাজিলের এক সোশাল মিডিয়া প্লাটফর্মে প্রকাশ পায়। চল্লিশ সেকেন্ডের ক্লিপে ৩ জন পুরুষের গলা শোনা গেছে। এরা কিশোরীকে নিয়ে বিদ্রূপ করছিল। মেয়েটির গায়ে আঘাতের চিহ্নও দেখা গেছে। এ সময় তিনি অজ্ঞান অবস্থায় পড়েছিলেন।

মেয়েটির দাদী একই পত্রিকাকে জানান, আমি ভিডিওটি দেখেছি। দেখার পর মনে হয়েছে, এটি দেখে আমি ভুল করেছি। এ ঘটনা যে ঘটছে তা বিশ্বাস হচ্ছিল না। এর চেয়ে যন্ত্রণাদায়ক বিষয় আর হয় না। মেয়েটি ভালো নেই। সে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

যে মানুষটি মেয়েটির ছবি দিয়েছে সে টুইট করেছে, ‘মেয়েটাকে থেঁতলে দিয়েছি’। তার অ্যাকাউন্টে এসব ছবি ও ভিডিও পোস্টের পর স্মাইলি ইমোজি ও থাম্বস আপ এবং লাইক পড়েছে ৫৫০টি।

মেয়েটির ১৯ বছর বয়সী প্রেমিক, ধর্ষণরত ৪১ বছর বয়সী এক লোক এবং সোশাল মিডিয়ায় প্রকাশের জন্যে ছবি তোলা অন্য দুইজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার বিরুদ্ধে টুইটার ফুঁসে উঠেছে। #EstuproNuncaMais (রেপ নেভার এগেন) হ্যাশট্যাগে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন অসংখ্য মানুষ।

এ ঘটনা ব্রাজিলকে একটা নাড়া দিয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে ধর্ষণের ঘটনায় সরকার ও বহু মানুষের প্রতিক্রিয়া হতাশাজনক।

সাও পাওলো-ভিত্তিক এক নারীবাদী দল ‘থিঙ্ক ওলগা’। তারা এক বিবৃতিতে জানায়, বিশ্বের যেকোনো স্থানে এমন পরিস্থিতির শিকার নারীরা তাদের জীবন শেষ করে ফেলেন। কারণ কুকর্মকারীরা এসব ঘটিয়ে তা সোশাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেয়। এসব ঘটনা সোশাল মিডিয়ায় প্রকাশ ঘটনার মতোই সমান অপরাধ। এ অপরাধের শাস্তি প্রতিটা ক্লিকের সঙ্গে বৃদ্ধি পাওয়া উচিত।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: