সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ২৯ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নবীগঞ্জে ভোট কারচুপির অভিযোগ: নৌকার ভরাডুবি

17b6e5d8-0353-4094-b241-6913aa57d410নবীগঞ্জ প্রতিনিধি::
নানা সমালোচনার ঝড় তুলে নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। উপজেলার ১৩ ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামীলীগ মনোনীত ৬ জন, বিএনপি মনোনীত ১ জন ও স্বতন্ত্র ৬ জন। গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে ভোট যুদ্ধ। সকাল থেকে ভোটাররা কেন্দ্রে আসতে থাকেন। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির কারণে প্রথমে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও, বেলা বাড়ার সাথে সাথে উপস্থিতি বাড়তে থাকে। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও নির্বিঘœ করতে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী ছিল তৎপর।

উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়ন, আউশকান্দি ইউনিয়ন, বড় ভাকৈর ইউনিয়ন, দেবপাড়া ইউনিয়নসহ বিভিন্ন স্থানে জাল ভোট প্রয়োগ ও কারচুপির অভিযোগ রয়েছে। আউশকান্দির মিনাজপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ প্রার্থীর মধ্যে হাতাহাতির খবর পাওয়া গেছে। এতে ১ জন আহত হয়েছেন। অপর দিকে, গজনাইপুর ইউনিয়নের গজনাইপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দরজা বন্ধ করে ১৫/২০ জনের একদল মহিলাকে ভোট প্রয়োগ করতে দেখা গেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। যার ভিডিও চিত্রও রয়েছে। বিএনপির প্রার্থী নির্বাচন প্রত্যাখান করে এটা কোন সুষ্ট নির্বাচন হনিয় বলে জানান। এমনকি মিনাজপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পোলিং এজেন্টদের প্রবেশ কার্ড ছাড়াই কক্ষে রাখা হয়। কর্মরত প্রিজাইটিং অফিসার বললেন কার্ড ছাড়াই কেন্দ্রে থাকার নিয়ম রয়েছে।

অপর দিকে, গজনাইপুর ইউপির কায়স্থগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে কর্মরত প্রিজাইটিং অফিসার ক্ষমতাশালীন এক প্রার্থীর পক্ষে পক্ষপাতিত্ব করছেন এমন এক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই কেন্দ্রে গেলে সাংবাদিকদের সাথে অশালিন আচনর করে কোন কথা বলতে রাজি হননি ওই ব্যাংক কর্মকর্তা প্রিজাইটিং অফিসার। তিনি বলেন, সাংবাদিকরা কেন্দ্রে প্রবেশ করার কোন অনুমতি দেয়নি নির্বাচন কমিশন। এ ঘটনায় ওই এলাকায় নানা সমালোচনা হয়। প্রিজাইটিং অফিসারের এহেন রহস্যজনক ভূমিকা নিয়ে তুলপাড় শুরু হয়। প্রিজাইটিং অফিসার কোন প্রার্থীর নিকট থেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ হয়েছেন বলেও মন্তব্য করেন কেন্দ্রে ভোটাদিকার প্রয়োগ করতে যাওয়া ভোটাররা। নানা সমালোচনার মধ্যে ওই ইউনিয়নে ভোট প্রয়োগ করা হয়।

নির্বাচনে আওয়ামীলীগের আধিপত্য থাকলেও ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে ৭ টিতেই নৌকার চরম ভরাডুবি ঘটেছে।

১৩ টি ইউনিয়নের ১ শত ৩২ টি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহন করা হয়। এর মধ্যে ৮১ গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে পুলিশের পাশাপাশি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বিজিবি ও র‌্যাব স্ট্র্যাইকিং ফোর্স কাজ করেছে।

১৩টি ইউনিয়নে মোট ভোটার ২ লাখ ৯ হাজার ৭শত ১৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ২ হাজার ৬শত ৭১ জন এবং মহিলা ১ লাখ ৭ হাজার ৪৭ জন।

১নং পশ্চিম বড় ভাকৈর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী সত্যজিৎ দাশ (চশমা)

২নং পূর্ব বড় ভাকৈর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র (বিএনপির বিদ্রোহী) আশিক মিয়া (ঘোড়া),

৩নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র বজলুর রশীদ (আনারস),

৪নং দীঘলবাঁক ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী আবু সাঈদ এওলা মিয়া নৌকা),

৫ নং আউশকান্দি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহিবুর রহমান হারুন (আনারস),

৬ নং কুর্শি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী আলী আহমেদ মুসা নৌকা),

৭নং করগাঁও ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী ছাইম উদ্দিন (ধানের শীষ),

৮নং সদর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী সাজু আহমেদ চৌধুরী (নৌকা),

৯ নং বাউশা ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী আবু সিদ্দিক (নৌকা),

১০ নং দেবপাড়া ইউনিয়ন স্বতন্ত্র এড. জাবেদ আলী (ঘোড়া),

১১ নং গজনাইপুর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী ইমদাদুর রহমান মুকুল (নৌকা),

১২ নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র (আ‘লীগ বিদ্রোহী) নজরুল ইসলাম (ঘোড়া),

১৩ নং পানিউমদা ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী ইজাজুর রহমান (নৌকা)।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: