সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পেছন ফিরে দেখা : এবার তাদের ভোটগুলো নৌকায় পড়েনি

tea-choyonnরাজনগর প্রতিনিধি::
চা শ্রমিক মানেই নৌকার সমর্থক। নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে বদ্ধমূল এই ধারণাকে মিথ্যা প্রমাণ করলো মৌলভীবাজারের রাজনগরের ১২টি চা বাগানের চা শ্রমিক ভোটাররা। রাজনগরে গত ৭ মে’র ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থীর কাছেই ধাক্কা খেয়েছেন নৌকার প্রার্থীরা। দলীয় কোন্দলের কারণে নৌকা প্রতীক না পাওয়ায় বিদ্রোহী দুই প্রার্থীর পক্ষে ভোটের বাক্সে সমর্থনের জোয়ার বইয়েছেন চা শ্রমিকরা। যে চা শ্রমিকদের নৌকার ভোট ব্যাংক মনে করা হতো তারাই এবার কড়া জবাব দিলেন দলীয় নেতাদের। নৌকা দেখে নয়, যোগ্য ব্যক্তিকেই ভোট দিয়েছেন রাজনগরের চা শ্রমিকরা। এবারের উপজেলা নির্বাচনে উত্তরভাগ ইউনিয়ন ও টেংরা ইউনিয়নে চমক সৃষ্টি করে তারা।

উপজেলার টেংরা ইউনিয়নের নয়টি ভোট কেন্দ্রের সবটিতেই বিজয়ী হয়ে চমক দেখিয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান টিপু খান। উপজেলার ৮ ইউনিয়নে একমাত্র তিনিই সব কেন্দ্রে বিজয়ী হওয়ার চমক দেখান। ২০১১ সালের ইউপি নির্বাচনে যুক্তরাজ্য থেকে এসে প্রার্থী হয়েছিলেন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি টিপু খান। ওই সময়ের নির্বাচনে উপজেলার মধ্যে তিনি সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। এবার নৌকা প্রতীক না পেয়ে আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন তিনি। চা অধ্যূষিত টেংরা ইউনিয়নের ভোটাররা ফিরিয়ে দেননি তাকে। ৯ হাজার ৬০৭ ভোট দিয়ে জনগণের জনপ্রিয়তার মাত্রা বুঝিয়ে দিয়েছেন ভোটাররা। নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির মোত্তালিব পেয়েছেন ২ হাজার ৮৬৬ ভোট। ব্যবধান ছিলো ৬ হাজার ৭৪১টি ভোটের। নিজের এ বিজয়কে তার ইউনিয়নের চা শ্রমিকসহ সর্বস্তরের মানুষের বিজয় হিসেবেই দেখছেন সকল কেন্দ্রে বিজয়ী চেয়ারম্যান টিপু খান।

এদিকে উপজেলার উত্তরভাগ ইউনিয়ন নৌকার প্রার্থী হওয়ার দৌঁড়ে এগিয়ে ছিলেন ইউপি আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ শহিদুজ্জামান ছালিক। তৃণমূল নেতাদের পছন্দ উপেক্ষা করে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয় একেবারেই অপরিচিত মুখ বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল আজিজকে। মনোনয়নবঞ্চিত শাহ শহিদুজ্জামান ছালিক বিদ্রোহী হয়ে আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতীদ্বন্দ্বীতা করেন। ৯ হাজার ২৫২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি। আর নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাওয়া আব্দুল আজিজ ৩ হাজার ১৫ পেয়ে ৩য় হন। বিদ্রোহী প্রার্থীর চেয়ে ৬ হাজার ২৩৭ ভোট কম পেয়ে পরাজিত হন নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী আব্দুল আজিজ। এক প্রশ্নের জবাবে টেংরা ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান টিপু খান জানান, চা শ্রমিকসহ সর্বস্তরের জনগণ আমার উপর আস্থা রেখে যেভাবে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিয়ে সব কেন্দ্রে আমাকে বিজয়ী করেছেন, আমি অবশ্যই তাদের আস্থার মর্যাদা রক্ষা করবো।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: