সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

খুলছে ইরাকের শ্রম বাজার

0,,15966164_303,00ডেইলি সিলেট ডেস্ক::
প্রায় দুই বছর নিরাপত্তাজনিত কারণে বন্ধ থাকার পর খুলছে ইরাকের শ্রম বাজার। প্রথম লটে ৯৭ জন বাংলাদেশি শ্রমিক ইরাকে পাঠানোর অনুমতি দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। গত বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি জনশক্তি, কর্মসংস্থান ব্যুরোতে পাঠানো হয়েছে। এর ভিত্তিতে জনশক্তি ও কর্মসংস্থান ব্যুরো সংশ্লিষ্ট ট্রাভেল এজেন্টকে ছাড়পত্র দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ইরাকের একটি নামি কোম্পানিতে ৬০০ জন বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়া হবে।

এ বিষয়ে ছাড়পত্র চেয়ে জনশক্তি ও কর্মসংস্থান ব্যুরোতে চিঠি পাঠায় বাংলাদেশি ট্রাভেল এজেন্ট। তবে নিরাপত্তার বিষয়টি চিন্তা করে তারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের জন্য পাঠিয়ে দেয়। এর ভিত্তিতেই ৯৭ জনকে ইরাকে পাঠানোর অনুমতি দেয়া হয়েছে। এর আগে ২০১৪ সালে ইরাকের রাজধানী বাগদাদে জঙ্গিদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর তুমুল সংঘর্ষ হয়। এ সংঘর্ষে অনেক লোক হতাহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে ওই সময় ইরাকের বাগদাদে কর্মরত বাংলাদেশিদের নিয়ে চিন্তায় পড়ে যায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এরপরই ইরাকে বাংলাদেশি শ্রমিক পাঠানোর অঘোষিত নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ইরাকে এক সময় অনেক বাংলাদেশি কাজ করলেও যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে প্রায় সবাই দেশে ফেরত এসেছিলেন। পরে যুদ্ধ শেষ হলে ২০০৯ সাল থেকে আবারও বাংলাদেশি জনশক্তি সেখানে যাওয়া শুরু করে। সরকারি হিসাবে সেই সংখ্যা ১৫ থেকে ২০ হাজারের মতো। এর মধ্যে বাগদাদ শহরের অদূরে বিসমিয়াহ নিউ সিটি হাউজিং প্রকল্পে প্রায় চার হাজার বাংলাদেশি বসবাস করছে। এর আগে ২০১৪ সালে ইরাকের পূর্বাঞ্চলীয় দিয়ালায় নিজেদের অবস্থান জোরদার করে ইসলামী জঙ্গিগোষ্ঠী আইসিস। মসুল এবং সাদ্দাম হোসেনের জন্মস্থান তিকরিতে তাদের অবস্থান সংহত করার পর আইসিস রাজধানী বাগদাদের দিকে অগ্রসর হতে শুরু করে। ওই প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশি শ্রমিকদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে জনশক্তি রপ্তানি বন্ধ রাখা হয়।

ওই সময় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ইরাকের পরিস্থিতি শান্ত না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশি শ্রমিক পাঠানো বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বর্তমানে কয়েক হাজার বাংলাদেশি ইরাকে চাকরি নিয়ে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন। কিন্তু সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এসব শ্রমিককে দেশটির পরিস্থিতি শান্ত না হওয়া পর্যন্ত পাঠানো যাবে না। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েক বছরে ইরাকে কাজ করার সুযোগ সৃষ্টি হওয়ার পর থেকে বেশকিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও সেখানে নিয়মিত শ্রমিক পাঠিয়েছে। এখন অনেক বাংলাদেশি পাঠানোর অপেক্ষায় রয়েছেন।

এদিকে ইরাকে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভিসা প্রত্যয়নে ঘুষ গ্রহণ, ভুয়া বিল-ভাউচারের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ, ছেলেমেয়ের স্কুল ফি বাবদ অতিরিক্ত অর্থ উত্তোলন, নিজ গৃহকর্মীকে বেনামে দূতাবাসের মালী দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেয়া এবং দায়িত্বে অবহেলাসহ নানাবিধ দুর্নীতি ও অপকর্মের অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে। এসব দুর্নীতি ও অনিয়মের তদন্ত করছে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: