সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চলে গেলে তো যাওয়াই যায়, কিন্তু এভাবে কেন?

sabira-hossain20160524182139বিনোদন ডেস্ক:
বড় উচ্ছ্বল এবং চটপটে ছিলো মেয়েটি। অফিস মাতিয়ে রাখতো। নিজের কাজের ফাঁকে হঠাৎ করেই অন্যের ডেস্কে গিয়ে হানা দিতো। হড়বড় করে বলতো নানা কথা। তার শিশুসুলভ চপলতার কাছে হার না মেনে উপায় থাকতো না। কথা বলতো আর হাসতো। সে হাসিতে যোগ দিতে হতো সবাইকে। চলে গেলে তো যাওয়াই যায়, কিন্তু এভাবে কেন?

আর কেউ হয়তো ডেস্কে গিয়ে জ্বালাতন করবে না। বলবে না হাসবে না। চপলতাও হয়তো আর দেখা যাবে না। উঠতি মডেল এবং গান বাংলা টেলিভিশনের মার্কেটিং এক্সিকিউটিভ সাবিরা হোসাইনের অপমৃত্যুতে শোকাহত গান বাংলা। তার আত্মহত্যা মেনে নিতে পারেননি বিনোদন জগতের মানুষ।

সাবিরা হোসাইন বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজের মডেলিংয়ের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। একইসঙ্গে মোহনা টেলিভিশন এবং পরবর্তীতে গান বাংলা টেলিভিশনের মার্কেটিং এক্সিকিউটিভ হিসেবে যোগ দেন। সাবিরার হোসাইন প্রেমিক নির্ঝর সিনহা রওনক নামের এক আলোকচিত্রীর উপর অভিমান ও ক্ষোভ প্রকাশ করে আত্মহত্যা করেছেন। প্রথমে ছোট ছুরিতে আত্মহত্যার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে পরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৫টায় সাবিরার বাসায় গিয়ে দরজা ভেঙে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে রাজধানীর রূপনগর থানা পুলিশ প্রেমিক রওনককে আটক করে। সাবিরার মা দিলসাদ কাদির সিমি মঙ্গলবার বিকেলে একটি মামলা দায়ের করেন। সাবিরা আত্মহত্যার আগে নিজের ফেসবুক পেইজে একটি ভিডিও শেয়ার দেন। সেখানেই স্পষ্ট হয় সাবিরার আত্মহত্যার নেপথ্যে কারণ।

সাবিরার মৃত্যুর খবর চাউর হওয়ার বিনোদন জগতে শোকের ছায়া নেমে আসে। বাদ যায়নি সাবিরার কর্মস্থল গান বাংলা টেলিভিশন। তাদের অফিসিয়াল পেইজের শোকাবহ বার্তাই তা স্পষ্ট করে।

গান বাংলা পেইজে বলা হয়েছে, “চলে গেলে তো যাওয়াই যায়, কিন্তু এভাবে কেন? বড় উচ্ছ্বল এবং চটপটে ছিলো মেয়েটি। অফিস মাতিয়ে রাখতো। নিজের কাজের ফাঁকে হঠাৎ করেই অন্যের ডেস্কে গিয়ে হানা দিতো। হড়বড় করে বলতো নানা কথা। তার শিশুসুলভ চপলতার কাছে হার না মেনে উপায় থাকতো না। কথা বলতো আর হাসতো। সে হাসিতে যোগ দিতে হতো সবারই।

হঠাৎ করে একটি ‘নির্মম মহাসত্য’ হাসির মাঝে কান্নার আড়াল তুলে দিলো। অফিসজুড়ে নেমে এলো থমথমে নীরবতা। ওর চলে যাওয়া মেনে নিতে পারেনি কেউ। তবু মেনে নিতে হয়, তবু চলে যায়…

শুধু একটি প্রশ্ন বুকজুড়ে বয়ে যায় দীর্ঘশ্বাসে.. ‘চলে গেলে তো যাওয়াই যায়, কিন্তু এভাবে কেন?’

এর ঘণ্টা দুয়েক আগে আরো একটি স্ট্যাটাস দেয় গান বাংলা। তাতে লেখা হয়, “আমরা শোকাহত- আমাদের সহকর্মী, গান বাংলা পরিবারের সদস্য সাবিরা হোসাইন পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে অনন্তলোকে পাড়ি দিয়েছেন। তার মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। গানবাংলা পরিবারের অগ্রযাত্রায় তার অবদানকে আমরা গভীরভাবে স্মরণ করছি এবং তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।”

গান বাংলার পরিচালক ও সিইও কৌশিক হোসেন তাপস নিজের ফেসবুক পেইজে লিখেছেন, Extremely shocked & speechless to hear the unexpected death news of Sabira Hossain! She was one of our dynamic & spontaneous team member working in our marketing department with always smile in her face. We all are so shocked that no words are enough to express our mental state! I wish you could re-think & not have taken such step to end your journey in this world. May Allah take good care of you & bless your departed soul. Amen …।

একই স্ট্যাটাসে Priyanka Elffrost নামে একজন ইউজার রিপ্লাই কমেন্টস করেছেন, “Just watched her last video. This is crazy. Killing yourself for some dumbass guy is never worth. Wish there was someone who could help her and get her out of this idea. May her soul rests in peace.

অন্যদিকে আত্মহননের চেষ্টার ভিডিও নিজের ফেসবুক পেইজে আপলোড দেয়ার পর মাথা ঠাণ্ডা রেখে শান্ত হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে আত্মহত্যার মতো পথ থেকে সরে আসার জন্য সাবিরাকে অনুরোধ জানিয়েছিলেন তার ফেসবুকের বন্ধুরা।

সাজ্জাদ আহমেদ: “What are you doing? Stop!!” অর্থাৎ “তুমি কী করছো? থামো!!”

আব্দুল্লাহ আল সোহান: “Sabira what r u doing yrrr….??? 2mr theke ata asha kora jay na….forget it….. u`ll be ok dear…” (সাবিরা তুমি এটা কী করছো? তোমার কাছ থেকে এটা আশা করা যায় না। এটা ভুলে যাও… সব ঠিক হয়ে যাবে বন্ধু)

মিমি ফিসতিন: “Ki kortesis aguli? Pagol hoye gesis?? Video delete kor taratari”

অ্যালেক্স মাহমুদ: “R delete kore lab nai … 6houre hoy gayse..”

ইসরাত তন্বি: “শান্ত হও মেয়ে। তোমার কী হয়েছে? যে মানুষটির তোমার জন্য অনুভূতি নাই, তোমার কষ্টে কষ্ট পায় না, তোমার ভালোবাসার মূল্য দেয় না, ওই ধরনের মানুষের জন্য তুমি মরতে যাচ্ছো? ওই মানুষটার সঙ্গে তোমার সম্পর্ক কয়দিনের? নিশ্চয়ই তোমার আব্বু-আম্মুর থেকে বেশিদিনের নয়। যেই বাবা-মা তোমাকে বড় করছে, ভালোবাসা দিয়েছে তাদের জন্য তুমি এই উপহার রাখলা? একটা ছেলে যার কাছে তোমার গুরুত্ব নাই, তার জন্য তুমি তোমার জীবন এইভাবে খারাপ করবা? এমন বোকামি করো না। এটা জীবন, কোন খেলার মাঠ নয়।”

শামীমা খান মাহী: “প্লিজ কেউ আমাকে আসল খবরটি দিবে, প্লিজ।”

ইলিয়াস হোসেন: “সে আর নেই, সে মারা গেছে।”

শামীমা খান মাহী: “প্লিজ আপনি কি আসলেই জানেন? এটা অসম্ভব। আমি এখনো বিশ্বাস করতে পারছি না।”

অধরা চৌধুরী: “শান্ত হও মেয়ে। এমন করো না। দয়া করে বলো, তুমি কি জীবিত আছো? প্লিজ একবার বলো। তোর চোখের সেই হাসি দেখার অপেক্ষায় আছি, প্লিজ।”

নুসরাত জাহান খান নিপা: “এটা কি করলা তুমি? এইটা কোনোদিনই ভাবতে পারিনাই আমি যে তুমি এই কাজ করবা। কত স্ট্রং একটা মেয়ে তুমি। কত খারাপ পরিস্থিতি আগে ফেস করে আসছো, আর আজকে এভাবে হার মেনে নিলা? একটাবার আমার সাথে শেয়ার করতা। আমি কি বলবো কিছুই বুঝতে পারতেছি না।”

খান সামির: “একটা বাজে মানুষের জন্য এভাবে নিজেকে ত্যাগ করা মোটেই উচিত হয়নি। সত্যি খুব খারাপ লাগলো ভিডিওটা দেখে। জীবনটা এতটা ছোট নয় যে খুব সহজে হার মানতে হবে। উচিত হয়নি। মেয়েটা যতবারই তার পেটে ছুরি ঢুকাতে চাইছে ততবারই আমার বুক কেঁপে উঠছে। মেয়েটা আবেগের কাছে হার মেনেই নিল। আল্লাহ আর কেউ যেন এমন না হয়।”

উল্লেখ্য, আলোকচিত্রী রওনককে উদ্দেশ্য করে ফেসবুক স্ট্যাটাসে সাবিরা লেখেন, আমি তোমাকে দোষ দিচ্ছি না। এটা তোমার ছোট ভাইকে বলছি। সে আমাকে যা ইচ্ছে বলেছে। আর বেস্ট পার্ট হলো, প্রত্যয় আমাকে বাসা থেকে বের করে দিয়েছে। আর আমার প্রশ্ন হলো, তোমার কি একটুও খারাপ লাগেনি?

সাবিরা আরো লেখেন, আমাকে যখন তখন ব্যবহার করবা, শারীরিক সম্পর্ক করবা আর এসব সহ্য করে যাবো এটা তো কোনো কথা না! আমিও ভালোবাসার টানে চলে আসবো তাও না, বিয়ের কথা বললে তোমার পরিবারের সমস্যা থাকে আর শারীরিক সম্পর্কের বেলায় সব ঠিক! এটা আমি আর সহ্য করতে পারছি না। এখন আমি আত্মহত্যা করছি শুধু তোমার জন্য।

শেষে সাবিরার প্রেমিক আলোকচিত্রীকে (নির্ঝর সিনহা রওনক) মেনশন করে লেখেন, আমার মৃত্যুর জন্য সে দায়ী। যদি আমি মারা যাই, তাহলে এর দায় তোমার।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: