সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৪৫ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

উপকূল অতিক্রম করছে রোয়ানু: নিহত ৫, ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড

17নিউজ ডেস্ক ::

ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’র প্রভাবে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ভারী বৃষ্টিপাতে গাছচাপায় নিহত হয়েছেন ২ জন। এছাড়া, পটুয়াখালীতে ঝড়ে একজন নিহত ও ২ জন আহত হয়েছেন। চট্টগ্রাম, মংলা, পায়রা সমুদ্রবন্দর ও কক্সবাজার উপকূলীয় এলাকাসহ দেশের সব রুটে নৌযান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বিআইডব্লিওটিএ। ব্যুরো প্রতিবেদক ও জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য নিয়ে প্রতিবেদন-

চট্টগ্রাম: ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে চট্টগ্রামে সকাল থেকেই টানা বৃষ্টি হচ্ছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ঝড়ো হাওয়ার সাথে সমুদ্র উত্তাল হতে শুরু করে। বড় বড় ঢেউ এসে তীরে আছড়ে পড়েছে। আনোয়ারা, বাঁশখালীসহ বেশ কয়েকটি উপকূলীয় এলাকা ৪ থেকে ৫ ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। পানিতে ডুবে গেছে বিভিন্ন ঘরবাড়ি। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য উঠানামাসহ সব ধরণের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বেলা সাড়ে ১২টার দিকে রোয়ানু চট্টগ্রামের উপর দিয়ে বয়ে যায়। এদিকে, সীতাকুণ্ডের সলিমপুরে পাহাড় ধসে দু’জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

ভোলা: ঘূর্ণিঝড়ের সময় দমকা হাওয়ায় ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলাসহ অন্তত ৩ কিলোমিটার এলাকা লণ্ডভণ্ড হয়ে পড়েছে। ঝড়ে ৬ শতাধিক বাড়িঘর ও দোকানপাট বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। ঝড়ে ঘরের নীচে চাপা পড়ে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা। এছাড়া মেঘনা নদীতে ডুবে গেছে বালুভর্তি দু’টি কার্গো জাহাজ।

বরগুনা: এদিকে, বরগুনায় সকাল ৯টা থেকে সাড়ে দশটার মধ্যে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু অতিক্রম করেছে বলে জানিয়েছে সাইক্লোন প্রিপারনেস প্রোগ্রাম। এসময় বাতাসের গতি বেশি থাকায় বিভিন্ন এলাকায় ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। গাছ ভেঙ্গে পড়ায় বন্ধ রয়েছে বিভিন্ন এলাকায় সড়ক যোগাযোগ। পানির চাপে পাথরঘাটা, কাকচিরাসহ বিভিন্ন এলাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় পানিতে তলিয়ে গেছে বেশ কিছু গ্রাম। উপকূলীয় এলাকা থেকে গ্রামবাসীদের সরিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে।

খুলনা: খুলনা অঞ্চলে সকাল থেকে প্রচুর বৃষ্টি পাশাপাশি বইছে দমকা হাওয়া। উত্তাল রয়েছে পশুর নদী। মংলাবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। ৩০টি সাইক্লোন শেল্টারের পাশাপাশি প্রস্তুত রয়েছে ৮টি মেডিকেল টিম।

ফেনী: এদিকে, ফেনীর বিভিন্ন উপকূলীয় এলাকা থেকে মানুষজনকে সরিয়ে নেয়ার জন্য সব ধরণের ব্যবস্থা নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। বৃষ্টির মধ্যেই মাইকিং করেছেন ভলান্টিয়াররা।

পটুয়াখালী: পটুয়াখালীতে ঘূর্ণিঝড়ে বেশ কিছু বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এ সময় একজন নিহত এবং অন্তত ২ জন আহত হয়েছেন। ভোর থেকে মুষলধারে বৃষ্টিপাত হওয়ায় স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। যেকোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসন।

এদিকে, সন্ধ্যা ৬টা পর চট্টগ্রামের মেঘনার মোহনা, সন্দীপ, হাতিয়া কুতুবদিয়া, ফেনী ও নোয়াখালীর জেলার ওপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু স্পর্শ করে বেড়িয়ে যাবে। শনিবার দুপুরে আবহাওয়া অধিদপ্তরে পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ ব্রিফিংয়ে একথা জানান। এসময় তিনি আরো জানান, ঘূর্ণিঝড়টি ঘণ্টায় ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার গতিতে অবস্থান পরিবর্তন করছে।

বন্ধ ফেরিসহ সবধরনের নৌযান চলাচল

এদিকে, বৈরি আবহাওয়ার কারণে বন্ধ রয়েছে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রুটের ফেরিসহ সবধরনের নৌযান চলাচল। বিআইডব্লিউটিএ জানায়, দুর্ঘটনা এড়াতে সকাল থেকে ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে ঘাটের দু’পাশে আটকা পড়েছে অর্ধ শতাধিক যাত্রীবাহী বাসসহ ২ শতাধিক যানবাহন। চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন যাত্রী ও চালকরা। ৬টি ফেরিতে গাড়ি লোড করা হলেও প্রবল বাতাসের কারণে তা ছেড়ে যায়নি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: