সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৩০ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আসলাম গ্রেপ্তার: সাফাদিকে গুপ্তচর বলায় ভারতে বিস্ময়

142566_1নিউজ ডেস্ক: বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরী যে ইসরাইলি নাগরিকের সঙ্গে ভারতে বৈঠক করার অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছেন তাকে গুপ্তচর বলে উল্লেখ করায় তার আমন্ত্রণকারীরা বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।

তারা বলছেন, মেনদি এন সাফাদি নামে ওই ইসরাইলি একজন গবেষক ও রাজনীতিক এবং তিনি মোসাদের কেউ নন।

যে আগ্রা শহরের মেয়রের উপস্থিতিতে সাফাদি ও আসলাম চৌধুরীর দেখা হয়েছিল বলে অভিযোগ, তিনিও বলেছেন, ওই অনুষ্ঠানে তাদের মধ্যে সাক্ষাৎ হলেও হয়ে থাকতে পারে।

বাংলাদেশের বর্তমান সরকারকে উৎখাতের ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে চৌধুরীকে রবিবার ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারপর সোমবার পুলিশের রিমান্ড আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তার বিরুদ্ধে সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

মেনদি এন সাফাদি ইসরাইলের ক্ষমতাসীন লিকুদ পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির একজন সদস্য– এবং সম্প্রতি ভারত-ইসরাইল সম্পর্ক ও আরো নানা বিষয় নিয়ে কথা বলতে তিনি বেশ ঘন ঘনই ভারতে এসেছেন।

ইন্টারন্যাশনাল ডিপ্লোম্যাসি অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস নামে তিনি একটি থিঙ্কট্যাঙ্কও বা গবেষণা প্রতিষ্ঠান চালান– এবং ভারতের একাধিক বিশেষজ্ঞর সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। এমনই একজন হলেন মেজর জেনারেল গগনদীপ বক্সী, যার সঙ্গে দিল্লিতে একটি সেমিনারে সাফাদির আলাপ হয়েছিল।

সাফাদিকে বাংলাদেশে একজন গুপ্তচার হিসেবে সন্দেহ করায় বিস্ময় প্রকাশ করেন জেনারেল বক্সি।

তিনি বলেন, দেখুন, ইসরাইলে ওনার ভূমিকা নিয়ে আমি জানি না– তবে ইসরাইল সরকারের খুব উঁচু মহলে ওনার প্রভাব আছে বলেই আমার মনে হয়েছে। খুব জ্ঞানী লোক, অনেক কিছু জানেন – তিনি ইসরাইল সরকারের অংশ এবং নিজে একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা।

দিল্লির সেমিনারে যে প্রতিষ্ঠানটি সাফাদিকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন সেই ‘ভারতীয় সিটিজেনস সিকিওরিটি কাউন্সিল’ সংগঠন মনে করছে দিল্লিতে এসে তিনি বাংলাদেশে অভ্যুত্থান ঘটানোর পরিকল্পনা করবেন সেটা সম্পূর্ণ অবিশ্বাস্য।

সংগঠনের আহ্বায়ক বিজয় কুমার বলেন, আমাদের আলোচনায় আমরা নানা মতের লোকজনকে কথা বলার প্ল্যাটফর্ম দিই– তাদের সঙ্গে এটুকুই আমাদের সম্পর্ক। সাফাদিকেও এভাবেই আমরা ডেকেছিলাম। কিন্তু দিল্লিতে এসে তিনি আমাদের বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশী দেশের বিরুদ্ধে চক্রান্তে লিপ্ত হবেন এটা ভাবার কোনো কারণ নেই। উনি আমাদের সেমিনারে দশ মিনিট ভাষণ দিয়েছেন, ব্যাস এটুকুই।

বস্তুত আসলাম চৌধুরীর সঙ্গে সাফাদির যে দেখা হয়েছিল – সেটা কিন্তু ঠিক দিল্লিতে নয়, হয়েছিল আগ্রাতে।

সেখানে উপস্থিত ছিলেন আগ্রা শহরের মেয়র ইন্দ্রজিৎ বাল্মিকীও – যার উপস্থিতিতে দুজনকে মালা পরানো হয়। উপলক্ষটা ছিল আগ্রার সঙ্গে ইসরাইলের একটি শহর সামারিয়াকে টুইন সিটি হিসেবে ঘোষণা করা।

আগ্রার মেয়র বলেন– এই টুইন সিটির প্রস্তাবটা এসেছিল ইসরাইলি প্রতিনিধিদলের কাছ থেকেই।

ওরাই আমার সঙ্গে দেখা করতে চান, আমি তাজমহলে সেই অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করি। সেখানেই মি সাফাদি এসেছিলেন– আরো হয়তো অনেকে এসেছিলেন, সবাইকে তো আমার পক্ষে চেনা সম্ভব নয়। অনেক বড় দল ছিল।

কিন্তু আসলাম চৌধুরীও কি সেখানে ছিলেন? মেয়র তা অস্বীকার করছেন না– কিন্তু একই সঙ্গে বলছেন আসলাম চৌধুরী যে বাংলাদেশি নাগরিক সেটাই তিনি জানতেন না।

তবে আগ্রার মেয়রের কার্যালয়েরই একটি সূত্র জানিয়েছে– চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী আসলাম চৌধুরীর ব্যবসার কাজে আগ্রাতেও যাতায়াত আছে, সেই সুবাদেই তিনি হয়তো শহরের মেয়রের আয়োজিত কোনো অনুষ্ঠানে গিয়ে থাকতে পারেন। তবে একই অনুষ্ঠানে সাফাদি ও আসলাম চৌধুরীর দেখা হয়ে থাকলেও তাদের মধ্যে কোনো বৈঠকের খবর জানা নেই বলেই সংশ্লিষ্টরা দাবি করছেন।

সম্প্রতি আসলাম চৌধুরীকে নিয়ে খবর বেরোয় যে তিনি সম্প্রতি ভারত সফরে গিয়ে ইসরায়েলি লিকুদ পার্টির এক নেতার সাথে বৈঠক করেছেন – যাকে ‘মোসাদ-সংশ্লিষ্ট’ বলে উল্লেখ করে কয়েকটি সংবাদপত্র।

পুলিশ বলছে, বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে চৌধুরীর সাথে ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থার বৈঠকের অভিযোগ আসার পর তারা তার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্ত নেন। রববার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সূত্র: বিবিসি

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: