সর্বশেষ আপডেট : ৩৮ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নাম পাল্টে সৌদি আরব গিয়েছিল ‘সন্ত্রাসী’ মুন্না !

34নিউজ ডেস্ক :: ১৯৯৯ সালের ২ জুন নগরীর পাঁচলাইশের চালিতাতলী এলাকায় প্রকাশ্য দিবালোকে খুন হন আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত আলী খান। চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের ১২ আসামির মধ্যে অন্যতম ছিলেন মো. বেলাল উদ্দিন মুন্না।

সেই হত্যাকাণ্ডের পর বাঁচতে নাম পাল্টে পাসপোর্ট তৈরি করে সৌদি আরব চলে যান তিনি।

শনিবার ভোরে বাবার করা মামলায় বায়েজিদ থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন বেলাল উদ্দিন মুন্না। এরপরই বেরিয়ে আসে তার নাম ‘জালিয়াতির’ এই তথ্য।

বেলাল উদ্দিনের পার্সপোর্টের একটি কপিতে দেখা গেছে তিনি নিজ নামের পরিবর্তে আবদুল আজিজ নাম ধারণ করেছেন। তবে বাবার নাম আবদুস সাত্তার ঠিকই রেখেছেন।

এ বিষয়ে বায়েজিদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন বলেন, ‘বাবার করা একটি মামলায় মো. বেলাল উদ্দিন মুন্নাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি শিবির ক্যাডার সাজ্জাদের এক সময়ের সহযোগী ও লিয়াকত আলী খান হত্যা মামলার এজহারনামায় আসামি ছিলেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকার করেছেন ওই হত্যাকাণ্ডের পর ২০০০ সালের দিকে নাম পাল্টে পাসপোর্ট তৈরি করে বিদেশে চলে যান। এ সংক্রান্ত কিছু ডকুমেন্টসও আমরা পেয়েছি। সব বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।’

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, লিয়াকত হত্যাকাণ্ডের পর মুন্না অনেক বছর সৌদি আরব ও পরে আরব আমিরাতে পালিয়ে ছিলেন। লিয়াকত আলী হত্যার মামলা নিষ্পত্তি হওয়ার পর তিনি দেশে ফিরে আসনে এবং নিজের প্রথম স্ত্রীকে অস্বীকার করেন।

পাশাপাশি পরিবারের অমতে আরেকজনকে বিয়ে করেন। এরপর থেকে ৫০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি এবং সম্পত্তি নিজের নামে লিখে নেওয়ার জন্য বাবার ওপর নির্যাতন শুরু করে মুন্না। গত ১০মে বাবাকে হত্যার উদ্দেশে দ্বিতীয় স্ত্রী ও সুমন নামে একজনকে নিয়ে ব্যাপক মারধরও করে মু্ন্না। এতে আহত হন তার মাও। এসময় অস্ত্র দেখিয়ে প্রাণনাশের হুমকিও দেয় সে।

এ ঘটনায় ১১মে আবদুস ছাত্তার তার ছেলে মুন্না, স্ত্রী জেসমিন ও বন্ধু সুমনকে আসামি করে বায়েজিদ থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় মুন্নাকে শনিবার গ্রেফতার করা হয়। একইরকম ঘটনার জন্য চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতেও আরও একটি জিডি করেছিলেন মুন্নার বাবা আবদুস ছাত্তার।

ওসি মোহাম্মদ মহসিন বলেন, ‘যে অস্ত্র দিয়ে বাবা-মাকে হত্যার হুমকি দিয়েছিল মুন্না সেটি উদ্ধারে তাকে পাঁচদিনের রিমাণ্ডে নেওয়ার আবেদন করা হয়েছে।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: