সর্বশেষ আপডেট : ১৮ মিনিট ৩৭ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বদ মেজাজী বাবর

full_992310535_1463156643নিউজ ডেস্ক :: চট্রগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলায় মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামি ও বিএনপির সাবেক স্বরাষ্ট প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর এখন গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারের পার্ট-১ এ অন্তরীণ রয়েছেন। দীর্ঘদিন যাবৎ জেলখানায় থাকায় তার শরীরের নানা ধরনের রোগ বাসা বেঁধেছে। অভিযোগ রয়েছে আদালতে হাজিরা দিতে নেওয়া ছাড়াও বিভিন্ন কারণে চিকিৎসা দিতে হাসপাতালে নেওয়ার সময়ে তিনি বিভিন্ন কারারক্ষীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে থাকেন।

কাশিমপুর কারাগারের একটি সূত্র জানায়, বাবর স্যার আমাদের কারাগারের একটি কনডেম সেলে বন্দী থাকেন। তিনি মারাত্মক শ্বাসকষ্ট ও মেরুদন্ডে ব্যথা, পেটের পীড়াসহ বিভিন্ন রোগে ভোগেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলায় তাকে প্রায় প্রতি সপ্তাহে হাজিরা দিতে আদালতে যেতে হয়। এছাড়াও বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নেওয়ার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল ও গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যেতে হয়। ফলে তিনি বিভিন্ন কারণে অকারণে কারারক্ষী ও কারাগারের বিভিন্ন ধরনের লোকজনের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে থাকেন।

ওই কারাসূত্রটি আরো জানায়, যাওয়ার সময়ে কোন কারণ একটু সুবিধা অসুবিধা হলে তিনি উত্তেজিত হয়ে যান এবং আমাদেরকে বকাঝকা করতে থাকেন। কিন্তু আমরা ওনার সঙ্গে তেমন কোন কথা বলিনা।

কারাগারে খুব ভোরে ঘুম থেকে ওঠেন বাবর। ফজরের নামাজ পড়ে বই পত্র পেপার পত্রিকা পড়ে সময় কাটান তিনি। সকালে কারাগার থেকে দেওয়া নাস্তা খেয়ে সেলের মধ্যে সময় পার করেন। নাস্তার তালিকায় থাকে রুটি, ভাজি, ডিম ও চা। দুপুর সাড়ে ১২ টার মধ্যে তিনি দুপুরের গোসল সেরে ফেলেন। এরপর তিনি একটা থেকে দেড়টার মধ্যে খান দুপুরের খাবার। যার তালিকায় থাকে সাদা ভাত, সবজি, রুই মাছ, ডাল আবার কখনো মুরগীর গোশত।

দুপুরে খাবার খেয়ে একটু ঘুমান তিনি। পরে বিকালে চা বিস্কুট দিয়ে নাস্তা সারেন। এরপর রাত আটটার সময়ে রাতের খাবার খেয়ে নেন তিনি। ওই তালিকায় থাকে সাদা ভাত, সবজি মাছ ও ডাল। এরপর নিজের সেলের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। কারাবিধি মোতাবেক মাসে দুইবার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান তিনি। পরিবার থেকে প্রতিমাসে কারা ক্যান্টিনে টাকা জমা করেন। ওই টাকা দিয়ে পছন্দের খাবার কিনে খান তিনি।

চট্রগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা, ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলার মামলা, সাবেক অর্থ মন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলা, বসুন্ধরা গ্রুপের আকবর আহমেদ সোবহানের ছেলে বাচাঁনোর জন্য ২১ কোটি টাকা ঘুষ নেওয়ার মত মামলা রয়েছে লুৎফুজ্জামান বাবরের বিরুদ্ধে।

এরমধ্যে চট্রগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলায় তার ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। বাকী মামলাগুলোর বিচার চলছে।

কাশিমপুর কারাগার ১-এর জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা বলেন, লুৎফুজ্জামান বাবর আমাদের এখানে আছেন। প্রতি সপ্তাহে তাকে হাজিরা দিতে হয়। তিনি একটু রাগী এটাই সমস্যা।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: